বগুড়ায় ইউএনও অফিস ভাংচুরের ঘটনায় থানায় অভিযোগ : ওসির অস্বীকার

নিজস্ব সংবাদ দাতা : বগুড়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) অফিসে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ভাঙচুর ও ইউএনও লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানা আক্তার জাহান সোমবার দুপুরে জানান, এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসের অফিস সহকারী রুহুল আমিন রোববার রাতে সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানাগেছে, থানায় দায়ের করা অভিযোগে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান সফিক, মামুন, রাশেদ, জুয়েল ,মান্নান সহ ৬জনের নাম উল্লেøখ সহ অজ্ঞাত হিসাবে আরও ২০/২৫ জনের নাম রয়েছে। তবে, সদর থানার অফিনার ইন্চার্জ (প্রশাসন-অপারেশনস)Ñ আবুল বাসার রোববার দুপুর আড়াইটায় জানান, ওই ঘটনায় এখনো কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।
উল্লেখ্য, বগুড়া সদরের রাজাপুর ইউনিয়নের বারেকের দোকান সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠ হতে ২য় বাইপাস মহাসড়ক পর্যন্ত রাস্তা সংস্কারের জন্য চলতি অর্থ বছরে কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসুচির (কাবিখা) আওতায় ৪ টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য আবদুল মান্নান বাচ্চু কাজ করার উদ্দেশ্যে ইতঃপূর্বে ১ম কিস্তির ২ টন চাল উত্তোলন করেন। কিন্তু ওই রাস্তায় আগেই এলজিএসপি’র আওতায় কাজ হওয়ায় নতুন করে কোনো কাজ করতে হয়নি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ আসায় তার নামে বরাদ্দকৃত ২য় কিস্তির ২টন চালের ডিও (ডেলিভেরী অর্ডার) প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে আটকে দেওয়া হয়। রোববার দুপুরে ইউপি সদস্য আবদুল মান্নান বাচ্চু আওয়ামী লীগের নেতাকর্মিদের সাথে নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিসে তার নামে বরাদ্দকৃত চালের ডিও নেয়ার জন্য গিয়ে হৈচৈ করেন। এ সময় প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস থেকে তাকে ডিও’র ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করতে বলা হয়। এরপর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান সফিকের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের একদল নেতাকর্মি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে গিয়ে চেয়ার, টেবিল ভাঙচুর করেন। এ সময় তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে লক্ষ্য করে ফুলদানি ছুঁড়ে মারেন বলে তিনি অভিযোগ করেছেন।