পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত শুনে সকল ফি মওকুফ করলো স্বদেশ হাসপাতাল

শাফায়াত সজল, বগুড়া: গত ২৫ শে জুন বৃহস্পতিবার বগুড়ার নামাজগড়ে অবস্হিত স্বদেশ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একজন গরীব রিকশাচালকের স্ত্রীর অপারেশন ফি সহ যাবতীয় বিল পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত শুনে মাফ করে দিয়ে মানবিকতার চরম দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

হাসপাতাল ও রুগীর স্বজনদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী থানার অন্তর্গত খামার মাউনপুর গ্রামের রিকশাচালক রফিকুল ইসলাম। তার গর্ভবতী স্ত্রী ফাতেমা বেগমের অপারেশন করানোর জন্য বগুড়ার এই হাসপাতালে ভর্তি করায়।

এরপরই তার স্ত্রীর অস্ত্রপচার সফল ভাবে হয়ে একটি সন্তানের জন্ম দেন । হতদরিদ্র রিকশাচালক রফিকুল ইসলাম একদিকে খুশি অপরদিকে হাসপাতালের ফি পরিশোধের চিন্তায় পরে যায়। বিষয়টি জানতে পারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।  তার আর্থিক সমস্যার কারণে স্বদেশ হাসপাতাল অপারেশন বাবদ চিকিৎসার সম্পূর্ণ ফ্রি মওকুফ করে দেয়। চিকিৎসা ফি’ এর বিনিময়ে  ফাতেমার কাছে থেকে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত শোনা হয়। শুধু ফ্রি চিকিৎসায় দেওয়া হয়নি সেইসাথে স্বদেশের পন্য ডিটারজেন্ট সাবানও বিনামূল্যে তার পরিবারকে উপহার স্বরুপ দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, রিকশাচালক রফিকুল ও তার স্ত্রী সহ পরিবারের সবাই নিয়মিত নামাজ আদায়, কোরআন তেলাওয়াত সহ সকল ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলে।এছাড়াও হাসপাতালটি বিভিন্ন সময় গরিব-অসহায়দের চিকিৎসার জন্য বিভিন্নভাবে সেবা ও সহযোগিতা করে থাকে। বিশেষ করে তারা বিভিন্ন সময় বিনামূল্যে প্লাস্টিক সার্জারি, চক্ষু শিবির ও বিকলাঙ্গ রোগীদের চিকিৎসা  সেবা দিয়ে থাকে।

এব্যাপারে সদ্য সন্তানের বাবা হওয়া রফিকুলের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, “মোরা খুব গরীব বাহে, দিন আনি দিন খাউছুন। মুই ইসকা (রিক্সা) চালিয়ে ট্যাহা কামাই করি। মোর ছাওয়াল এর কতা চিন্তা করিয়া ভাল হাসপাতালে ভর্তি করাওছুম। ওই হাসপাতালের লোকজন মোর থেকি একনা ট্যাহাও লেয়নি। তারা খালি মোরকোরক দোয়া করিবার কহিচে। আর মোর বাড়িওয়ালীর থেকি সুরা শুনচে। আল্লাহ কাচে মুই এলা অন্তর থেকে চাওছি, আল্লাহ অই হাসপাতালের বেবাক লোকগের আর ডাক্তারদের ভাল রাইখুক বাহে”।