শাজাহানপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা করোনার কর্মকান্ডে প্রশংসায় ভাসছেন

শাজাহানপুর, (বগুড়া) প্রতিনিধি: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার। সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে স্থানীয় প্রশাসন। আর এসব নির্দেশনা পালনে প্রথম থেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে চলেছেন বগুড়া জেলা শাজাহানপুর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রভাষক সোহবার হোসেন ছান্নু ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা পারভিন । উপজেলায় নির্মাণাধীন রাস্তায় কার্পেটিং, ইট সোলিং কাজে উদ্বোধন ও পরিদর্শন সহ বিভিন্নরকম উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের ভিত্তি স্থাপন, বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি পালন করছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান ব্যাক্তিগত অর্থায়নে করোনার প্রভাবে কর্মহীন অস্বচ্ছল এবং হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে বিভিন্ন ধাপে খাদ্য সামগ্রি,কাঁচা সবজি,পুষ্টি চাহিদা পূরণে মুরগি,ডিম ও নগদ অর্থ বিতারণের পাশাপাশি শিক্ষা বিস্তারে অবদান রাখেন।

উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমাণ আদালত মাধ্যমে আইন অমান্য করে দোকান পরিচালনা করায়,স্বাস্থ্য বিধিমালা অমান্য করায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযান ও সচেতনতা মূলক কর্মসূচি অব্যহত রাখছেন।

উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে চলেছেন কখনো জনগণকে সচেতন করা, হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা,করোনায় কর্মহীন পরিবার ও কালবৈশাখী ঝড় ও ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে সহযোগিতা পৌঁছে দিচ্ছেন ।

গত ২৮ জুন সোমবার উপজেলার গোহাইল, মাঝিড়া, আড়িয়া ইউনিয়নে এডিবি’র অর্থায়নে নির্মিত রাস্তা সহ বিভিন্ন নির্মাণাধীন কাজ পরিদর্শন উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হেফাজত আরা মীরা,উপজেলা প্রকৌশলী ইসমাইল হোসেন, উপ-সহকারি প্রকৌশলী নূরুল ইসলাম,উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলী ইমাম ইনোকী,যুগ্ম-সম্পাদক বাদশা আলমগীর প্রমুখ।

উপজেলা স্থানীয়রা সচেতন মহল জানান, দেশের এমন দুর্যোগময় মুহূর্তে সত্যিই উপজেলা চেয়ারম্যান ভূমিকা প্রশংসনীয়। দেশের জন্য এ ধরনের নিবেদিতপ্রাণ সব উপজেলায় থাকলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হত।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহমুদা পারভীন বলেন, প্রজাতন্ত্রের একজন কর্মচারী হিসেবে সরকার আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছে তা আমি সাধ্যমত পালন করার চেষ্টা করছি। আমি মনে করি, মানব সেবার উপরে আর কোনো মহৎ কাজ নেই।তাই করোনা পরিস্থিতিতেও সরকারি নির্দেশনা মতে কাজ করেছি।’

উপজেলা চেয়ারম্যান প্রভাষক সোহবার হোসেন বলেন,করোনা পরিস্থিতি মধ্যে নিজের দাপ্তরিক কাজের মাঝেই প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছি উপজেলা মানুষের ভালো রাখতে। করোনা দূযোগের সময় সরকারি উন্নয়ন কর্মকান্ড যেন ব্যঘাত সৃষ্টি না হয়,সেজন্য নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করে যাচ্ছি।