ওজন কমে গেছে খালেদা জিয়ার, খাবারে পাচ্ছেন না রুচি

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ওজন এবং মুখের রুচি কমে গেছে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী ও দলটির যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।

শনিবার (২৯ আগস্ট) রাতে গুলশানে খালেদা জিয়ার ভাড়াবাসা ফিরোজা’য় গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করার পর তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাতে সমস্যা, হাঁটুতে ব্যথা। ম্যাডামের ওজন কমে গেছে এবং তার রুচিও কমে গেছে। গত কয়েক মাস ধরে তিনি শক্ত কোনো খাবার খেতে পারছেন না।’‘ম্যাডামের শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি অসুস্থ, তার জরুরিভাবে চিকিৎসা প্রয়োজন।’

আইনজীবী বলেন, ‘তার কোনো সুচিকিৎসা হচ্ছে না। এজন্য তার ভাই সাঈদ ইস্কান্দার বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছেন। সেই আবেদনে দেশে এবং বিদেশে চিকিৎসা যেকোনো স্থানে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য বলেছেন।’

রাত আটটার দিকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তার আইনজীবী ও দলের যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। রাত সোয়া নয়টার দিকে তিনি সেখান থেকে বের হয়ে যান।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার সাজা গত ২৪ মার্চ স্থগিত করে সরকার। পরের দিন ২৫ মার্চ মুক্তি পেয়ে গুলশানের বাসায় ওঠেন খালেদা জিয়া।

মুক্তির শর্ত অনুযায়ী তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারছেন না। ছয় মাসের মধ্যে পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও চিকিৎসা শুরু হয়নি খালেদা জিয়ার। যেটুকু হচ্ছে বাসায় নিজস্ব  চিকিৎসকের পরামর্শে।

গত ২৫ মার্চ দুই শর্তে মানবিক কারণে সরকারের নির্বাহী আদেশে সাজা স্থগিতাদেশের পর ছয় মাসের জন্য মুক্তি পান খালেদা জিয়া। সেই সাজার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর।

দুর্নীতির মামলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় কারাগারে যান বেগম জিয়া। পরে শারীরিক অসুস্থতার জন্য তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।