এটা শুধুমাত্র একজন নারীকে ধর্ষণ নয়, বাংলাদেশকে ধর্ষণ,গণতন্ত্রকে ধর্ষণ-এমপি সিরাজ

বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক ও বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বলেছেন আজকে এই যে ধর্ষণ এটা শুধুমাত্র একজন নারীকে ধর্ষণ নয়, বাংলাদেশকে ধর্ষণ, বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ধর্ষণ, বাংলাদেশের জনগণকে ধর্ষণ। এর ধিক্কার দেয়ার ভাষা আমাদের কাছে নাই। তিনি বলেন, বাংলাদেশে বহু অপকর্ম আমরা দেখেছি, শুনেছি কিন্তু এই যে এমসি কলেজে স্বামীর হাত থেকে স্ত্রীকে টেনে নিয়ে ধর্ষণ, বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে যে নির্মম নির্যাতন তা দেখিনি। এগুলো কারা করেছে তা পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। আওয়ামী লীগের ছাত্রলীগের সোনার ছেলেরা এসব ঘটিয়েছে। আমরা দেখেছি বেগমগঞ্জে নারীকে যে ধর্ষণ করেছে তার বিরুদ্ধে এক বছর আগেই ধর্ষণের মামলা রয়েছে, তার তো জেলে থাকার কথা। তাহলে কি করে সে নতুন করে এ অপকর্ম করতে পারে? আওয়ামী সন্ত্রাসী কর্তৃক সারাদেশে নারী ও শিশু ধর্ষণ এবং যৌন নির্যাতনের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসাবে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বগুড়া জেলা বিএনপির আয়োজিত দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কেএম খায়রুল বাশারের পরিচালনায় জেলা বিএনপির আহবায়ক সিরাজ আরো বলেন, শুধু ধর্ষণ নয়, আজকে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে তারা লুট করেছে। দেশকে একটা অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিনত করার লক্ষ্যে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে আজ সরকার এ কাজ করছে। আজকে তারা কোনো ক্ষেত্রে কোনো কিছুর নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। তিনি আরো বলেন, দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে শুধু তাই নয় অর্থনীতি আজ ধংসের মুখে। মানুষের জীবনের কোনো নিরাপত্তা নাই। আজকে এই দেশে সবচেয়ে অসহায় অবস্থায় আছেন আমাদের মা-বোনেরা। প্রতি মুহূর্তে তারা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে। আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই সরকার ক্ষমতায় থাকার সকল অধিকার হারিয়েছে। তাদের ক্ষমতায় থাকার কোনো ধরনের কোনো কারণ নেই। এমপি সিরাজ বলেন, আমাদের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করতে গিয়ে এখনো বন্দি আছে। আজকে তিনি অসুস্থ কিন্তু তার যেটা প্রাপ্য সেটা তাকে দেয়া হচ্ছে না। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান তিনি আজ দেশের বাহিরে। তাকে ফিরিয়ে আনতে হলে আমাদের আজকে অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাবেক এমপি মোঃ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, বগুড়া জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এ্যাড. সাইফুল ইসলাম, ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল, জেলা বিএনপি সাবেক সভাপতি ও আহ্বায়ক কমিটির সদস্য রেজাউল করিম বাদশা, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আলী আজগর তালুকদার হেনা, লাভলী রহমান, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আহসানুল তৈয়ব জাকির, এম আর ইসলাম স্বাধীন, হামিদুল হক চৌধুরী হিরু, তৌহিদুল আলম মামুন, সহিদ উন নবী সালাম, শেখ তাহা উদ্দিন নাইন, মাফতুন আহমেদ খান রুবেল, সাইদুজ্জামান শাকিল, মনিরুজ্জামান মনির। আরো বক্তব্য রাখেন, আবুল হোসেন মোল্লা, এ্যাড. সোলাইমান আলী, ইকবাল কবির পলাশ, এস এম মামুন, শাহিন, জেলা কৃষকদলের আহ্বায়ক আকরাম হোসেন, বগুড়া জেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক এ বি এম মাজেদুর রহমান জুয়েল, যুগ্ম আহবায়ক সরকার মকুল, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু হাসান, সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী রিগ্যান, নাজমা আক্তার, শ্রমিকদলের লিটন শেখ বাঘা, মৎসজীবিদলের আহ্বায়ক ময়নুল হক বকুল, সৌরভ হাসান শিবলুসহ নেতৃবৃন্দ। খবর বিজ্ঞপ্তির।

সর্বশেষ সংবাদ