নন্দীগ্রামে ঐতিহ্যবাহী নবান্ন উপলক্ষ্যে মাছের মেলা

নাজমুল হুদা, নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার নন্দীগ্রামে ঐতিহ্যবাহী নবান্ন উপলক্ষ্যে বিভিন্ন হাট-বাজারে বসেছে মাছের মেলা। নবান্ন উৎসব বলতে নতুন আমন ধান কাটা-মাড়াইয়ের পর নতুন চালের বিভিন্ন রকমের খাবার তৈরী করা হয়ে থাকে। এ উৎসবে কৃষকদের বাড়ি বাড়ি হরেক রকমের মাছ ক্রয় করা হয়। এর পাশাপাশি গরু, মহিষ ও ছাগল জবাই করা হয়ে থাকে। নবান্ন উপলক্ষ্যে জামাই-ঝি ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে নিয়ে এসে নানা রকম সুস্বাদু খাবার খাওয়ানো হয়। পঞ্জিকা অনুসারে মঙ্গলবার পহেলা অগ্রহায়ণ হওয়ায় এ উপজেলার সনাতন ধর্মাবলম্বীরা নবান্ন উৎসব পালন করছে। এ উৎসবকে ঘিরে প্রতি বছরের ন্যায় এবারো বিভিন্ন হাট-বাজারে মাছের মেলা বসেছে। অগ্রহায়ণ মাসের প্রথম শুক্রবার থেকে মুসলিম সম্প্রদায় নবান্ন উৎসব শুরু করে। উপজেলার নন্দীগ্রাম, রণবাঘা ও ওমরপুর হাট-বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, সারি সারি মাছের দোকান। সেখানে থরে থরে সাজানো রুই, কাতল, চিতল, আইড়, বোয়ালসহ হরেক রকমের বড় বড় মাছ। কৃষকরা ব্যাপক উৎসাহের সথে মাছ কিনে। কোনো কোনো মাছ বিক্রেতারা বিশালাকৃতির মাছগুলো মাথার ওপর তুলেধরে ক্রেতাদের আকর্ষণের চেষ্টা করে। মাছ বিক্রেতা শামীম হোসেন বলেছে, নবান্ন উৎসবকে ঘিরে বড় বড় মাছ বাজারে বিক্রি করতে এনেছি। আমার দোকানে এবার ১৪ থেকে ১৫ কেজি ওজনের মাছ বিক্রয় করেছি। মাছ বিক্রেতা গোলাম মোস্তফা বলেছে, মাছের আকার ভেদে বিভিন্ন দামে মাছ বিক্রয় করতে হচ্ছে। উপজেলার নাগরকান্দি গ্রামের মাছ ক্রেতা কবির চন্দ্র সরকার বলেছে, ৩৫০ টাকা কেজি দরে কাতল মাছ ক্রয় করেছি। মাছের মেলায় মাছ কিনতে আসা ওসমান গণি বলেছে, হিন্দুদের নবান্ন উৎসব উপলক্ষ্যে বাজারে বড় বড় মাছ এসেছে। আমি ৮ কেজি ওজনের একটি কাতল মাছ কিনেছি।

সর্বশেষ সংবাদ