কুড়িগ্রামে মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলী হত্যা মামলায় দুই জেএমবি সদস্যের উপস্থিতিতে শুনানী

সাইফুর রহমান শামীম, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামে ধর্মান্তরিত খৃষ্টান মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলী হত্যাকান্ডে বিস্ফোরক দ্রব্য মামলায় দুই জেএমবি সদস্যের উপস্থিতিতে জেলা জজ আদালতে শুনানী অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমবার দুপুরে কড়া পুলিশি নিরাপত্তায় এ মামলার প্রধান আসামী জেএমবি অন্যতম সদস্য রাজিবগান্ধী ও গোলাম রব্বানীকে আদালতে হাজির করা হয়। জেএমবি সদস্য রাজিবগান্ধী হলিআর্টিজান ও শোলাকিয়া হত্যা মামলারও আসামী।
কুড়িগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ ও এইচ এম ইলিয়াস হোসাইন এর আদালতে এ শুনানী অনুষ্ঠিত হয়। শুনানীর পরবর্তী তারিখ আগামী ৩০ আগষ্ট নির্ধারন করা হয়।
২০১৬ সালের ২২ মার্চ কুড়িগ্রাম সদরের গাড়িয়াল পাড়া এলাকায় সকালে প্রাত ভ্রমনের সময় নিজ বাড়ীর সামনে কুপিয়ে হত্যা করা হয় ধর্মান্তরিত খৃষ্টান মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলীকে। এসময় হত্যাকারীরা বোমার বিস্ফোরন ঘটিয়ে মোটর সাইকেলযোগে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক দুইটি মামলা হয়।
মামলায় ৭ আসামীর মধ্যে ৪ আসামী ইতিপুর্বে হলি আর্টিজান, শোলাকীয়া, নান্দাইল ও রাজশাহীতে পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়। বাকী এক আসামী এখনও পলাতক রয়েছে।
আটক জেএমবি সদস্য রাজীবগান্ধীর গাইবান্ধা জেলার সাঘাটার ভুতমারা বোনারপাড়া গ্রামের ওসমান মোল্ল্যার ছেলে এবং গোলাম রব্বানী কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার ঘুমারু ভিমসীতোলা গ্রামের সাইফুল ইসলামের পুত্র। পলাতক জেএমবি সদস্য রিয়াজুল ইসলাম কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার তালুক নাককাটির একতীরের আড়া গ্রামের নুর হোসেন ব্যাপারীর ছেলে।