বগুড়ায় ৬ ঘণ্টার ব্যবধানে ৩ দুর্ঘটনা, নিহত ২

বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় মহাসড়কে ৬ ঘণ্টার ব্যবধানে ৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় বাসের চালক ও সুপারভাইজার নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও ১৪ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশষ্কাজনক।

শুক্রবার (১৯ মার্চ) দিবাগত রাত সোয়া ২টা থেকে ভোর সোয়া ৫টা পর্যন্ত বগুড়া -ঢাকা মহাসড়কে দশমাইল, ছোনকা ও ঘোগা বটতলা এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত বাস চালক রংপুর জেলার মিঠাপুর থানার কারফিখাল গ্রামের রাজা মিয়ার ছেলে রওশন (৩৫), সুপারভাইজার মাসুদ (২৭)। আহতরা হলেন, দুই বাসের রনি (২০), ফরিদুল ইসলাম (২০) আল আমিন (২০), ফজলা মিয়া (৫০), আজিদুল ইসলাম (৩০) সিরাজুল ইসলাম (৩৫) এবং পিকআপসহ তিনটি ট্রাকের আহতের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা নাবিল পরিবহনের একটি বাস (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৫৫২২) মহাসড়কে শেরপুর উপজেলার দশমাইল এলাকায় পৌঁছালে ঢাকাগামী সৃষ্টি পরিবহনের অপর একটি বাসের সাথে (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৬১৪৪) মুখোমুখী সংঘর্ষ হয়।এতে ঘট নাস্থলে সৃষ্টি পরিবহনের চালক ও সুপারভাইজার মারা যায়। এবং দুই বাসের সাতজন যাত্রী আহত হন। আহতদের শেরপুর ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার করে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে ভর্তি করে।

শেরপুর ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স কর্মকর্তা রতন হোসেন জানান, আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং মরদেহ পুলিশের কাছে হস্থান্তর করা হয়েছে। অপরদিকে শনিবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে ঢাকা বগুড়া মহাসড়ের ছোনকা এলাকায় ঢাকাগামী একটি ট্রাক পিকআপের পেছনে ধাক্কা দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বিপরীতগামী অন্য একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখী সংঘর্ষ হয়। এতে ৬ জন আহত হয়। আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। ভোর ৪টায় ঘোগা ব্রিজের সামনে একটি ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার মাঝে উল্টে চালক ও হেলপার আহত হয়েছে। তিন ঘণ্টার ব্যবধানে তিনটি দুর্ঘটনায় রাস্তায় ব্যপক যানযট সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বানিউল আনাম জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুর্ঘটনায় কবলিত গাড়িগুলো রাস্তা থেকে সরিয়ে নেওয়ার পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

সর্বশেষ সংবাদ