ব্যবধান দুই বছর-বগুড়ায় গ্যাস ট্যাবলেটে ঘোড়া ও মানুষের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার:নিজ কন্যা জামিরন ও জামাই হেলালের সাথে ঝগড়ার জেরে অভিমান করে গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যা করে জামাত আলী (৭০) নামের এক বৃদ্ধ । তার বাড়ি বগুড়া সদরের ইসলামপুর ( হরিগাড়ি) গ্রামে । সেই ওই গ্রামের মৃত রইস উদ্দিনের পুত্র ।এলাকাবাসি জানিয়েছে , শনিবার সকালে জামাত আলীর সাথে নিজ কন্যা জামিরনের ঝগড়া হয়। ঝগড়ায় জামাত আলীর জামাই হেলাল স্ত্রী জামিরনের পক্ষ নিয়ে শ^সুরকে অপমান করলে মনের দুঃখে গ্যাস ট্যাবলেট খায় জামাত আলী । এঘটনা জানতে পারলে স্বজন ও প্রতিবেশিরা তাকে শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয় । হাসপাতালে চিকিৎসা শুরুর আগেই মারা যায় সে।পরে পুলিশের সম্মতিতে ময়না তদন্ত করে জামাতের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয় । এরপর তার দাফন সম্পন্ন হয় ।তবে ভিন্ন একটি কারণে গ্যাস ট্যাবলেটে জামাত আলীর মৃত্যু নিয়ে ব্যাপক গুঞ্জন চলছে । তার প্রতিবেশিরা জানান ২০১৯ সালে জামাত আলীর একটি ঘোড়া গ্যাসট্যাবলেট খেয়ে মারা যায়। এই মৃত্যুর জন্য জামাত আলী ওই সময় সাজ্জাদ হোসেন পল্লব নামের একজন সাংবাদিক ও তার পরিবারের নামে ঘোড়া হত্যার অভিযোগ এনে বগুড়া সদর থানায় মামলা দেয় । পুলিশ অভিযোগের সপক্ষে প্রমান না পাওয়ায় মামলাটি কোর্টে খারিজ হয়ে যায়।পরে লোকমুখে জানাজানি হয় যে জামাত আলীই গ্যাসট্যাবলেট খাইয়ে ঘোড়াটিকে মেরে ফেলে। জামাত আলীর জামাই ও আত্মীয় এবং পৌরসভার ১৪ নম্বর সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেন পিন্টু পরামর্শে থানায় ওই মামলা দায়ের করেছিল। ওই কাউন্সিলরের সাথে পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের ভোট নিয়ে বিরোধ ছিল অভিযুক্ত সাংবাদিক ও কাউন্সিলর প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন পল্লবের ।বগুড়া সদর থানায় ইউডি মামলা হয়েছে।