স্বামীকে বশ করার কথা বলে নারীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে ইমাম আটক

স্বামীকে বশ করার কথা বলে নারীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে ইমাম কে আটক করেছে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ।। সাইফুর রহমান শামীম, কুড়িগ্রাম।।কুড়িগ্রাম সদরে এক নারীর স্বামীকে তাবিজের মাধ্যমে বশ করার প্রলোভন দেখিয়ে ঐ নারীর সাথে অশোভন আচরণ করার অভিযোগে সাবেক এক ইমামকে গ্রেফতার করেছে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ। মঙ্গলবার (১৭ আগষ্ট) গ্রেফতারকৃত ঈমামকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খান মো. শাহরিয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ভুক্তভোগী নারীর স্বামীর দায়ের করা এক এজাহারের ভিত্তিতে সোমবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হরিকেশ কানিপাড়া গ্রামের মৃত শামছুল হকের পুত্র মাওলানা মোফাচ্ছের হোসেন সামসি (৪৫)। পুলিশ জানায়, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হরিকেশ কানিপাড়ার এক ব্যক্তিকে তার স্ত্রীর বশে আনার জন্য তাবিজ সহ বিভিন্ন উপায়ের প্রলোভন দেখিয়ে আসছিলেন মাওলানা মোফাচ্ছের হোসেন সামসি। প্রলোভনের ফাঁদে পা দিয়ে বিভিন্ন সময় ঐ নারী মাওলানা মোফাচ্ছের হোসেনের নির্দেশনা মেনে আসছিলেন। গত ১৩ আগস্ট সুযোগ পেয়ে ঐ নারীকে শ্লীলতাহানি সহ যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করে অভিযুক্ত মাওলানা মোফাচ্ছের হোসেন সামসি। এরপর সোমবার(১৬ আগস্ট) ভুক্তভোগী নারীর স্বামীর দায়ের করা এক এজাহারের ভিত্তিতে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ আরও জানায়, অভিযুক্ত মাওলানা মোফাচ্ছের হোসেন সামসি এক সময় কুড়িগ্রাম সদরের এক স্বনামধন্য মসজিদের ইমাম ছিলেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ থাকায় তাকে মসজিদ থেকে বহিষ্কার করে মসজিদ কমিটি। বর্তমানে তিনি সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের একটি মাদ্রাসায় শিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত আছেন। হজ্বের টাকা নিয়ে পলায়ন করার অপরাধে তিনি জেল খেটেছেন এবং তিনি বিভিন্ন সময় নারীদের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিক অপকর্মের সাথে যুক্ত বলেও জানায় পুলিশ। কুড়িগ্রাম সদর থানার সেকেন্ড অফিসার প্রলয় বর্মা বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার(১৭ আগস্ট) তাকে জেলখানায় প্রেরণ করা হয়েছে।