গোদাগাড়ীতে ৩৬ জাতের শীতকালিন হাইব্রিড টমেটোর বাম্পার ফলন হচ্ছে।

মোঃ হায়দার আলী, রাজশাহী থেকেঃ রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে শীতকালীন হাইব্রিড টমেটো উঠতে শুরু করেছে। এ বছর বরেন্দ্র অঞ্চলে ৩৬ জাতের টমেটো চাষ হয়েছে। এর মধ্যে তিন জাতের আবাদ বেশি। আর তিন ভাগের দুই ভাগের বেশি টমেটো উৎপাদন হয় গোদাগাড়ী উপজেলায়। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের রাজধানি ঢাকা, চিটাগাং, সিলেট, খুলনা, বগুড়া, নাটোর, পাবনাসহ  দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রি করা হয়। ফলে টমেটো কেনাবেচাকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর ৩ শ থেকে ৪ শ কোটি টাকার লেনদেন হয় বলে জানিয়েছে স্থানীয় কৃষি অফিস, কৃষক, টমেটো পাইকার এ বছর বরেন্দ্র অঞ্চলে ৩ হাজার ৬৬০ হেক্টর জমিতে টমেটোর চাষ হয়েছে। প্রতি হেক্টর জমিতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সাড়ে ২২ মেট্রিকটন। গতবছর ৩ হাজার ৫৩১ হেক্টর জমিতে টমেটো চাষ হয়েছিল। রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে- এবছর জেলার মতিহার থানা এলাকায় টমেটো চাষ হয়েছে ১৪ হেক্টর জমিতে, বোয়ালিয়া ৫ হেক্টর, পবায় ২৩৫ হেক্টর জমিতে। এছাড়া তানোরে ২৫ হেক্টর, মোহনপুরে ১৫ হেক্টর, বাগমারায় ২২৫ হেক্টর, দুর্গাপুরে ৯০ হেক্টর, পুঠিয়ায় ৬০ হেক্টর, গোদাগাড়ীতে ২ হাজার ৯৫০ হেক্টর, চারঘাটে ২ হেক্টর ও বাঘায় ৪০ হেক্টর জমিতে টমেটো চাষ হয়।কৃষি অফিস বলছে, টমেটোর বিভিন্ন জাতের মধ্যে গোদাগাড়ীতে সবচেয়ে বেশি চাষ হয় ‘বিপুল প্লাস’। এবছর ৮শ হেক্টর জমিতে এই জাতের টমেটোর চাষ হয়েছে। ‘ভিএল ৬৮২’ জাতের টমেটো চাষ হয়েছে ৬৬০ হেক্টর জমিতে। এছাড়া ‘ইউএল ৭৪২’ জাতের টমেটো চাষ হয়েছে ৫৫০ হেক্টর জমিতে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে- গোদাগাড়ীতে আউশ ধান কেটে নেওয়ার পরে টমেটো চাষ শুরু হয়। এটা মূলত বর্ষাকালীন টমেটো। এই উপজেলায় প্রায় ৩৬ জাতের টমেটো চাষ হয়। যার সবগুলো হাইব্রিড। অন্য যে কোনো মাঠ ফসলের তুলনায় টমেটো চাষ অত্যন্ত লাভজনক। বিঘায় ৬০ থেকে  ৮০ মণ টমেটো উৎপাদন হয়। কম করে প্রতিমণ ১ হাজার ৫শ টাকা করে হলেও ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকায় বিক্রি করা যায়। যা ধান কিংবা অন্য ফসল চাষে সম্ভব নয়।
গোদাগাড়ীর হুজরাপুর এলাকার  কৃষক আব্দুর রাজ্জাক  বলেন, ৭ বিঘা জমিতে টমেটো চাষ করেছি। প্রথমে চালান ১৬ মণ উঠেছে। প্রতি মণ (কাঁচা) টমেটো বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ১ শ থেকে ২ হাজার  ৫ শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দিন দিন বেশি টমেটো বেশি উঠবে বলে তিনি জানান।
গোদাগাড়ীর টমেটো চাষী সুমন আলী জানান, প্রতিবছর ১০/১২ বিঘা জমিতে  ‘টমেটো চাষ করে থাকেন,  প্রথম দিকে ভালোই দাম পাওয়া যায়, শেষের দিকে দাম কমে যায় । ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হয়, যদি এলাকায় কোন কোল্ডস্টোরেজ না থাকায় মৌসুমের শেষে টমেটো ক্রয় করতে চায় না ব্যবসায়ীরা।  ফলে আমরা ব্যপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়, এ চিত্র  গোদাগাড়ীর সকল টমোটো চাষীরা।
তিনি আরো জানান, ‘টমেটো ব্যবসায়ীরা মূলত বাইরের। তারা এখানে এসে থাকেন। এর পরে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে টমেটো কিনে ট্রাকে ভর্তি করে নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে  যায়। সঙ্গে স্থানীয় ব্যবসায়ীরাও থাকে। ঢাকার যাত্রাবাড়ী থেকে টমেটো ক্রয় করতে আসা মোবারক জানান, মোকামের জন্য ২ হাজার ৩০০ টাকা ধরে কাঁচা টমেটো ক্রয় করছি। প্রতিমণ টমেটো পাঁকিয়ে ও শ্রমিক খরচ দিয়ে ৩ হাজার টাকা পড়ে যাচ্ছে। তারপরও প্রথম চালান পাঠালে লাভ-লোকসান বুঝা যাবে।
গোদাগাড়ীর হুজরাপুরের টমেটো চাষী মঞ্জুর রহমান জানান, ‘তিনি ‘বিপুল প্লাস’ জাতের টমেটোর চারা জমিতে বপন করেছিলেন। গাছে টমেটো এসেছে। আর কিছুদিন পর বিক্রি করা যাবে।’
কৃষি অফিস বলছে, টমেটোর বিভিন্ন জাতের মধ্যে গোদাগাড়ীতে সবচেয়ে বেশি চাষ হয় ‘বিপুল প্লাস’। এবছর ৮শো হেক্টর জমিতে এই জাতের টমেটোর চাষ হয়েছে। ‘ভিএল ৬৮২’ জাতের টমেটো চাষ হয়েছে ৬৬০ হেক্টর জমিতে। এছাড়া ‘ইউএল ৭৪২’ জাতের টমেটো চাষ হয়েছে ৫৫০ হেক্টর জমিতে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে- গোদাগাড়ীতে আউশ ধান কেটে নেওয়ার পরে টমেটো চাষ শুরু হয়। এটা মূলত বর্ষাকালীন টমেটো। এই উপজেলায় প্রায় ৩৬ জাতের টমেটো চাষ হয়। যার সবগুলো হাইব্রিড। অন্য যেকোনো মাঠ ফসলের তুলনায় টমেটো চাষ অত্যন্ত লাভজনক। বিঘায় ৬০ থেকে ৭০ মণ টমেটো উৎপাদন হয়। কম করে প্রতিমণ ১ হাজার টাকা করে হলেও ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকায় বিক্রি করা যায়। যা ধান কিংবা অন্য ফসল চাষে সম্ভব নয়।
উপজেলা কৃষি অফিসার শারমিন সুলতানা জানান, গত বছর ১৫০ কোটি টাকার টমেটো বিক্রি হয়েছে। এছাড়া পরিবহন ও শ্রমিক মিলে আরো ২৫ কোটি টাকার লেনদেন হয়। টমেটো কেনা-বেচাকে কেন্দ্র করে সবমিলে ২০০ কোটি টাকার লেনদেন হয় প্রতিবছর। তিনি আরো জানান, টমেটো উৎপাদন মৌসুম সাধারণত নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত (চার মাস) ধরা হয়। এই অঞ্চলে টমেটো দু’বারে চাষ হয়। এর মধ্যে একটি রবির আগে উঠে। এই টমেটোর বেশি দাম পান চাষীরা। যা বাজারে বিক্রি হয় ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে। বরি মৌসুমের টমেটো বিক্রি হয় ৫০ থেকে সর্বনিম্ন ৫ থেকে ১০ টাকায়। এ পাঁচ থেকে ১০ টাকা মৌসুমের শেষ সময়ে দাম।
রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কেজেএম আব্দুল আউয়াল জানান, ৩৬ জাতের টমেটো চাষ হয় রাজশাহীতে। এক কথায় টমেটো অর্থকরি ফসল। জেলায় সবচেয়ে বেশি গোদাগাড়ীতে টমেটো চাষ হয়। আগাম উঠায় চাষিরা বাজারে ভালো দাম পান। চাহিদা বাড়ায় প্রতি বছরই চাষের পরিধি বাড়ছে। আধুনিক চাষের কলাকৌশল নিয়ে সবসময় মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা কৃষকদের পাশে আছেন।