ইউরোপে ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা, শনাক্ত ১০ কোটি

মহামারি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) নতুন ধরন ওমিক্রন আসার পর ইউরোপ আবারও মহামারির কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠেছে। যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও ইতালির মতো দেশের গত তিন দিনের শনাক্তের হার সে ইঙ্গিতই দিচ্ছে। বর্তমানে ইউরোপে ১০ কোটিরও বেশি করোনা শনাক্তের রেকর্ড হয়েছে। শুধু গত এক সপ্তাহে প্রায় ৫০ লাখেরও বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে। ইউরোপের ৫২টি দেশের মধ্যে ১৭টিতে গত এক সপ্তাহে করোনা শনাক্তের এই সংখ্যা আগের যে কোনো সময়ে এক সপ্তাহে আক্রান্তের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনার পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশ সময় রোববার (২ জানুয়ারি) বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে ফ্রান্সে। সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে শনাক্ত হয়েছে ২ লাখ ১৯ হাজার ১২৬ জন রোগী। একইভাবে যুক্তরাজ্যে ১ লাখ ৬২ হাজার ৫৭২ জন, ইতালিতে ১ লাখ ৪১ হাজার ২৬২ জন, তুরস্কে ৩৬ হাজার ৭৩১ জন, জার্মানিতে ১৯ হাজার ৭০৬ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। সবমিলে গত দুই বছরে ১০ কোটি ৭৪ হাজার ৭৫৩ জনের দেশে করোনা শনাক্ত হয়েছে। যদিও এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে নেওয়া হয়েছে জরুরি পদক্ষেপ, বাড়ানো হচ্ছে টিকাকরণের হার। এই মহাদেশটিতে জনসংখ্যার মোট ৬৫ শতাংশ মানুষ করোনার অন্তত একডোজ টিকা নিয়েছেন। পূর্ণডোজ টিকা নিয়েছেন মোট জনসংখ্যার ৬১ শতাংশ মানুষ। তবুও গত কয়েক দিন ইউরোপে করোনায় আক্রান্ত অনেক বেড়ে গেছে। বিশ্বে প্রতি ১ লাখ বাসিন্দার মধ্যে সংক্রমণের অনুপাত সবচেয়ে বেশি ছিল ইউরোপে। এর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে ডেনমার্ক। দেশটিতে প্রতি এক লাখে ২ হাজার ৪৫ জন মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। অপরদিকে সাইপ্রাসে এই সংখ্যা ১ হাজার ৯৬৯ এবং আয়ারল্যান্ডে ১ হাজার ৯৬৪। এদিকে, ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মারা গেছেন আরও ৩ হাজার ৮৭৫ জন। অন্যদিকে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ১১ লাখ ৮৭ হাজার ১২৫ জন। বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ কোটি ৯৭ লাখ ১ হাজার ৪৮৯ জন এবং মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৪ লাখ ৫৬ হাজার ৯৬২ জনে। আর সুস্থ হয়েছেন ২৫ কোটি ৪১ লাখ ৪৮ হাজার ৪৭০ জন।