মান্দায় ঝুঁকি নিয়ে ভাঙা ব্রিজ পারাপার

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর মান্দায় ৪ মাসেও সংস্কার হয়নি ভাঙ্গা ব্রিজ।  মৈনম ইউপির নওগাঁ রাজশাহী মহাসড়কের পার্শ্বে জেলেঘাটি নামক স্থানে মৈনমগামী এলজিইডির পাকা রাস্তার মাঝখানে ব্রীজটি ধ্বসে গেছে। এমন অবস্থায় ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছেন পথচারী ও শিক্ষার্থীরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মহাসড়কের পার্শ্বে “সতিহাট আর এন্ড এইচ-ভদ্রসেনা শিয়ালডাঙ্গী মন্ডব সড়ক” এই সড়কের শুরুতেই রয়েছে একটি ছোট ব্রীজ । ৪ মাস পূর্বে ব্রীজটির মাঝখানে ছাদ ধ্বসে পড়েছে। তবে গ্রামের মানুষজন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন প্রতিনিয়ত এই ব্রীজটি দিয়ে। ব্রীজের উপর দিয়ে চলাচলরত মানুষজন, ভ্যান, অটোরিকশা ও সিএনজি যেকোন সময় দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন। এ অবস্থায় চলাচলের ঝুঁকি থাকা সর্তেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাঝখানে ছাদ ধ্বসে পড়া ব্রিজের উপর দিয়ে চলাচল করছে এলাকাবাসীসহ সকলে।
যেভাবে মাঝখানে ছাদ ধ্বসে ঝুলে আছে এই ব্রীজটি। তার উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ছোট-বড় যানবাহন ও সাধারণ মানুষ। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি ভদ্র সেনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করেন এই রাস্তা দিয়ে।
স্থানীয়রা জানান, ব্রীজটি ৩ থেকে ৪ মাস পূর্বে মাঝখানে ধ্বসে পড়ে গেছে। তখন থেকে এখন পর্যন্ত কেউ সংস্কার করেনি।
ভদ্রসেনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জিল্লুর রহমান বলেন, ব্রীজটির উপর দিয়ে প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে আমরাসহ কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকাবাসী যাতায়াত করেন। ব্রীজটি সংস্কার না হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে  চলাচল করতে হচ্ছে। এ অবস্থায় ব্রীজটি সংস্কার হওয়া জরুরী।
মৈনম মোল্লা পাড়া গ্রামের সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আমরা ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছি ৫ থেকে ৬ টি গ্রামের মানুষ। এবং বাসাবাড়ির ভারী কোনো জিনিস পত্র আমরা ভাঙ্গা ব্রিজের উপর দিয়ে বহন করতে পারিনা। রাতের অন্ধকারে যেকোনো সময় পথচারীরা দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন। অচিরে ব্রীজটি সংস্কারের জোর দাবি জানান।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী শাইদুর রহমান মিঞ্জা বলেন, যেহেতু পাশেই স্কুল। স্কুলের প্রধান শিক্ষিক অথবা এলাকাবাসী চেয়ারম্যান বরাবর  একটি দরখাস্ত দিলে আমরা দ্রুত ব্রিজটি সংস্কার করে দিবো।