নিরাপত্তার চাদরে বগুড়ায় যথাযোগ্য মর্যাদায় মাতৃভাষা দিবস পালন

সঞ্জু রায়, স্টাফ রিপোর্টার: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সমন্বিত কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে বগুড়ায় সোমবার যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও জাতীয় শহীদ দিবস পালন করা হয়েছে। প্রতি বছরের তুলনায় শহীদ মিনারে আগতদের নিরাপত্তা প্রদানে বগুড়ায় এবার প্রশাসনের তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। পুলিশ, র‌্যাব, গোয়েন্দা শাখার সদস্য, পিবিআই, আনসার সদস্যসহ সকল বাহিনীর সমন্বিত পরিকল্পনায় নিরাপত্তার চাদরে বগুড়ায় অমর একুশের সকল আনুষ্ঠানিকতা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
মহান ২১শে ফেব্রুয়ারীর প্রথম পহর রাত ১২টা ১মিনিটে বগুড়ার শহীদ খোকন পার্কে অবস্থিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বগুড়া জেলা প্রশাসক মো: জিয়াউল হকের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন এবং জেলা পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বিপিএম এর নেতৃত্বে বগুড়া জেলা পুলিশ ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর পরবতীর্তে পর্যায়ক্রমে জেলার সকল সরকারি ও বেসরকারি দপ্তর, বগুড়া প্রেস ক্লাব, বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়ন, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। কিন্তু এই বছর বগুড়ার এই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রবেশমুখে ছিলো কঠোর নিরাপত্তা বলয়। যার মাঝে স্ক্যানিং মেশিনের মাধ্যমে দেহ তল্লাশি, পোষাকে ও সাদা পোষাকে পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি, গোয়েন্দা তৎপরতা যাতে বেশ সুশৃঙ্খল ভাবে শেষ হয়েছে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের পর্ব। এছাড়াও ২১শে ফেব্রুয়ারি সারাদিন বগুড়ায় শহীদ মিনারকে ঘিরে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত বইমেলাতেও ছিল পাঠকদের বেশ ভিড় এবং উৎসবমুখর পরিবেশ। দিনব্যাপী বিভিন্ন সরকারি দপ্তর ও সামাজিক সংগঠনগুলোর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে নানা সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা যেখানেও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল বেশ কড়া।
২১শে ফেব্রুয়ারী সুষ্ঠুভাবে পালনে বগুড়ায় র‌্যাবের গৃহীত পদক্ষেপ প্রসঙ্গে র‌্যাব-১২ এর কোম্পানি কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার নজরুল ইসলাম জানান, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী একুশের প্রথম প্রহর থেকেই র‌্যাব অত্যন্ত সজাগ ছিল। তাদের ৪টি টহল দল যারা নির্বিঘ্নভাবে কাজ করেছে সারাদিন। শহীদ মিনারে পোষাকে ও গোয়েন্দা সদস্যদের মাধ্যমে নিরাপত্তা বিধানসহ তারা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তা বিধানে বিশেষ জোর দিয়েছিলেন।
ভাষা দিবসে প্রতিবারের তুলনায় এইবার বগুড়ায় কিছুটা বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রনয়ন প্রসঙ্গে জেলা পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বিপিএম জানান, ২১শে ফেব্রুয়ারী বাঙ্গালি জাতির কাছে আবেগ ও একটি গৌরবান্বিত দিন। যাদের রক্তের বিনিময়ে আমরা আজ নিজ মাতৃভাষায় কথা বলতে পারছি সেই ভাষা শহীদদের স্মরণে এদিন ছোট বড় সকলে শহীদ মিনারে আসে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে। তাই সকলে যেন নির্বিঘ্নে এই শ্রদ্ধা নিবেদন করতে পারে এবং দিনব্যাপী উক্ত দিবসকে ঘিরে আয়োজিত সকল কর্মসূচী সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয় সেই লক্ষ্যে বগুড়ায় পুলিশের পক্ষে ৩ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। পোষাকে ও সাদা পোষাকে পুলিশসহ জেলায় একুশের আগে থেকেই সুষ্ঠু নিরাপত্তা বিধানে কাজ করছে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা সদস্যরা। তবে বিগত সময়ে বগুড়ায় ফুল দেওয়া কে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক দলগুলোর মাঝে ঘটা কিছু বিশৃঙ্খলাকে মাথায় রেখে এইবার নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে পুরো শহরকে। তবে শুধু পুলিশ নয় সুষ্ঠু নিরাপত্তা বিধানে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাও তৎপর ছিল বগুড়ায় এবং সকলের সমন্বিত প্রচেষ্টায় কোন বিশৃঙ্খলা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে সকল কর্মসূচী সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে।