পুলিশের দক্ষতায় পাচারের হাত থেকে রক্ষা পেল রাজবাড়ির মুন্নি

নিজস্ব  প্রতিবেদক, রাজশাহী  :  জেলা পুলিশ রাজশাহীর সময়োচিত পদক্ষেপে পাচারের হাত থেকে রক্ষা পেলেন রাজবাড়ীর জেলার মুন্নি  (৩০) নামের এক নারী।
গত বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারী) বিকেল ৪ টার দিকে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে গোদাগাড়ী থানা পুলিশের একটি টিম ওই তরুনীকে ভারতে পাচার হওয়ার সময় চরআষাড়িয়াদহ থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এতথ্য নিশ্চিত করেছেন  রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) সনাতন চক্রবর্তী।

পাচারের হাত হতে রক্ষা পাওয়া মুন্নি রাজবাড়ী জেলার সদর উপজেলার মাধব লক্ষিকোল গ্রামের ওসমান সরকারের মেয়ে ও ইউনুস শেখের স্ত্রী।
জানা গেছে, রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানার ওসি কামরুল ইসলামের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে রাজবাড়ী জেলার এক নারী  রাজশাহীর গোদাগাড়ী চর আষাড়িয়াদহ সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচার করা হচ্ছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় গোদাগাড়ী থানার ওসি চরআষাড়িয়াদহ দুর্গম চরে প্রেমতলি তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই রাসেল রানাসহ একটি টিমসহ চরআষাড়িয়াদহ এলাকায় অভিযান চালায়।
চরআষাড়িয়াদহ সীমান্তবর্তী চোরাচালান প্রবণ এলাকা হওয়ায় সেখানে পোশাকধারী পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে নারী পাচারকারীরা পালিয়ে যায়।
এসময় পুলিশ ওই নারীকে উদ্ধার করে।
জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে ওই নারী জানায়, তার বাড়ি রাজবাড়ী জেলার সদর থানায়। তার স্বামী মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী। তার ছয় বছর বয়সী একটা বাচ্চা আছে। ভারতের পশ্চিম বাংলার ইসমাইল নামক এক ব্যক্তির সাথে তার হোয়াটসঅ্যাপে সম্পর্ক গড়ে উঠলে সেই ব্যক্তি তাকে দেশত্যাগে প্রলুব্ধ করে এবং তারই নির্দেশনায় তরুনী ভারত যাওয়ার জন্য সুদূর রাজবাড়ী থেকে রাজশাহী গোদাগাড়ী আষাড়িয়াদহে চরে চলে আসে।

ভারতের ইসমাইল স্থানীয় দালালের মাধ্যমে তরুনীকে ভারত পাচার করতে চেয়েছিল। রাজশাহী জেলা পুলিশের কার্যকর পদক্ষেপে তরুনী পাচারের হাত থেকে রক্ষা পায়।

এই বিষয়ে গোদাগাড়ী মডেল থানার ওসি কামারুল ইসলাম বলেন, পাচারের হাত থেকে নারীকে উদ্ধার করে তার পিতা মাতার কাছে শুক্রবার সকালে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাচারকারীদের বিরুদ্ধে মামালা করলে তার অভিভাবকদের রাজবাড়ী জেলায় মামলা দায়ের করতে হবে বলে জানান।