নওগাঁয় যুবতীকে গণধর্ষণ, আসামি যুবদল নেতাসহ ১২ বখাটে অধরা

জেলা প্রতিনিধি : নওগাঁয় রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে এক যুবতীকে (২৫) গণধর্ষণের অভিযোগে যুবদল নেতাসহ ৭জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৪/৫জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলার আসামিদের এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।
গণধর্ষণের শিকার ওই নারী বৃহস্পতিবার (১২ মে) নওগাঁ সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন। আগেরদিন বুধবার সন্ধ্যায় নওগাঁ শহরের মুক্তির মোড় নওজোয়ান মাঠের সাবেক এলিট স্কুলের পাশের পুরাতন লাল-পাকা ভবনে ওই যুবতীকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে ১২জন বখাটে। ওই যুবতী বর্তমানে নওগাঁ সদর হসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে জানা গেছে।
মামলার আসামিরা হলেন- নওগাঁ সদরের মাস্টারপাড়ার মৃত আব্দুস সামাদের ছেলে ওয়ার্ড যুবদলের সভাপতি মো. হাসিবুল (৩০), ওই এলাকার মো. রিপন (৩০), মো. রাহি (৩০), খাঁস নওগাঁ এলাকার আব্দুস সাত্তারের ছেলে সাজেদুর রহমান জ্যোতি (৩২), একই এলাকার মৃত খোকনের ছেলে মো. নাদিম (৩২), আসলাম হোসেনের ছেলে মো. নুরন্নবী (৩১) এবং রাণীনগর উপজেলার ইমরান (৩২)।
গণধর্ষণের শিকার ওই নারী শুক্রবার (১৩ মে) রাতে মুঠোফোনে জানান, তিনি খাঁস নওগাঁ এলাকায় বসবাস করেন। পূর্বে নওগাঁ শহরের একটি কাপড়ের দোকানে সেলসম্যান হিসেবে চাকরি করতেন। চাকরি হারানোর পর গত একমাস ধরে শহরের মাষ্টারপাড়ায় একটি বাড়িতে এক স্কুল শিক্ষার্থীকে পড়ান। সেখানে আসা-যাওয়ার পথিমধ্যে ওই এলাকার হাসিবুল ও নুরন্নবীসহ বেশকয়েকজন বখাটে প্রায় প্রতিদিনই যুবতীর পথরোধ করে কুপ্রস্তাব দিতো। ঘটনার দিন শিক্ষার্থীকে পড়ানো শেষে সন্ধ্যায় শহরের মুক্তির মোড় নওজোয়ান মাঠের সাবেক এলিট স্কুলের পাশের রাস্তা দিয়ে বৃষ্টির মধ্যেই বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। হঠাতই বখাটে হাসিবুল ও নুরন্নবীসহ ১১/১২জন ওই যুবতীকে পথরোধ করে তুলে নিয়ে সাবেক এলিট স্কুলের পাশের পুরাতন লাল-পাকা ভবনে গণধর্ষণ করে।
পুলিশ জানিয়েছে, মামলার আসামিরা পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতার করতে জোর প্রচেষ্টা চলছে।