পঞ্চগড়ের বোদায় কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপের কার্যালয় উদ্বোধন

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ঝলইশালশিরি ইউনিয়নে আজ বিকাল ৩ টায় নাগরিক প্লাটফরম কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপ (সিডব্লিউজি) কার্যালয় উদ্বোধন করেন বোদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আলম টবি। উদ্বোধনী আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ঝলইশালশিরি কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপের সভাপতি এবং ঝলইশালশিরি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন। এসময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) এর ম্যানেজার (গ্রান্টস) আলেয়া ফেরদৌসি, গণসাক্ষরতা অভিযান এর প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর রোকন উদ্দিন, একাউন্টস এন্ড ফাইন্যান্স অফিসার ফাতেমা-তুজ জহুরা, পল্লী সাহিত্য সংস্থার নির্বাহী পরিচালক হারুন অর রশিদ, সিনিয়র প্রজেক্ট অফিসার শেখ মাসুকুর রহমান শিহাব, ঝলইশালশিরি কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপের সদস্য রশিদা আক্তার, মেরিনা আক্তার ,বুলবুলী আক্তার। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপের সদস্য কংকর পদ দে।
উদ্বোধক উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আলম টবি বলেন, জনগণকে সংগঠিত করে সময় অনুযায়ী সমস্যা চিহ্ণিত করে সুশাসন নিশ্চিত করতে সাংগঠনিক উন্নয়নের মাধ্যমে সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপ অব্যাহতভাবে ভূমিকা পালন করে যাবে এমনই প্রত্যাশা। সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগগুলোকে ফলপ্রসূ করতে জনগণের ন্যায্য অধিকার আদায় করে নেবার ক্ষেত্রে ঝলইশালশিরি কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপ কাজ করছে। ভবিষ্যতে এটি রোল মডেল হিসেবে অন্যান্য ইউনিয়নেও নাগরিকদের অনুপ্রাণিত করবে।
অন্যান্য অতিথিরা বলেন, এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য জিও এবং এনজিও একসাথে কাজ করে যাচ্ছে। এমজেএফ এর অর্থায়নে গণসাক্ষরতা অভিযান ও পল্লী সাহিত্য সংস্থা বিগত তিন বছরের অধিক সময় থেকে উক্ত ইউনিয়নে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে স্থানীয় নাগরিকদের সম্পৃক্ত করে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গুণগত ও মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতে এবং কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নে ভূমিকা রেখে চলেছে। ফলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং উন্নয়নকর্মীদের সমন্বিত উদ্যোগে নাগরিক প্লাটফরম কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপ একটি মডেল ইউনিয়ন গড়ার লক্ষ্যে সবাইকে সম্পৃক্ত করে এগিয়ে চলেছে। ইতিমধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নকালে কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপের মাধ্যমে গণশুনানি, সামাজিক নিরীক্ষা, কমিউনিটি স্কোর কার্ড, সিটিজেন চার্টার, অভিভাবক সমাবেশ, সচেতনতামূলক উঠান বৈঠকের মত কার্যক্রমগুলো পরিচালিত হয়েছে। এখন এটি একটি সামাজিক নাগরিক সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যা উক্ত ইউনিয়নে নাগরিকদের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করবে।