কুড়িগ্রাম রৌমারীতে মা ও তার ৫ মাসের শিশুকে গলাকেটে হত্যা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের রৌমারীতে মা ও তার ৫ মাসের শিশু সন্তানকে গলাকেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাস্থল থেকেই শিশু হাবিবের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মাকে মুমূর্ষ অবস্থায় রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় তার মৃত্য হয়।
স্থানীয়রা জানায়, শনিবার দুপুরে সদর ইউনিয়নের নতুনবন্দর হাজিপাড়া এলাকায় ধান ক্ষেত থেকে শিশুটির গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মা হাফসা আকতার (২৫) কে উদ্ধার করে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তাকে গুরুত্বর অবস্থায় ময়মনসিংক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার সদয় পথেই তার মৃত্যু হয়। নিহত শিশু ও তার মা হাফসা নতুনবন্দর এলাকার মোঃ সাহেব আলীর সন্তান ও স্ত্রী।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রচন্ড বৃষ্টি মধ্যে নতুনবন্দর হাজিপাড়া এলাকায় একটি পুকুরপাড়ের পূর্বপাশের ধানক্ষেত থেকে শব্দ শুনে স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির মরদেহ ও পাশেই শিশুরটির মা হাফসাকে গলাকাটা অচেতন অবস্থায় দেখতে পায়। এসময় স্থানীয়রাসহ পরিবারের লোকজন হাফসাকে উদ্ধার করে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করায়। পরে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উন্নত চিকিৎিসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথেই মা হাফসা বেগমের মৃত্যু হয়। এদিকে খবর পেয়ে পুলিশ শিশুটির মরদেহের সুরোতহাল প্রতিবেদন তৈরি শেষে রৌমারী থানায় নিয়ে আসে।
নিহত হাফসা আক্তারের ভাই হাসিনুর রহমান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার বোনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান তার বোন জামাই ঢাকায় কাজ করে। এ ঘটনার কথা শুনে তিনি ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দিশ্যে রওয়ানা দিয়েছেন।
রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোন্তাছের বিল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে শিশুটির গলাকাটা অবস্থায় পড়ে থাকা মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। শিশুটির মাকে গুরুত্বর অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। জানতে পেরেছি মেডিকেলে নেয়ার পথে শিশুটির মা হাফসা আক্তারও মারা গেছে। সুরোতহাল প্রতিবেদন শেষে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নেয়া হয়েছে।