মেজর শরিফকে অবাঞ্চিত ঘোষনার পর ডাক পেলেন বিএনপির সেই নেতারা

তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে অবশরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল ও বিএনপির চেয়ারপার্সনের সাবেক সামরিক উপদেষ্টা প্রয়াত সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হকের ছোট ভাই শরিফ উদ্দিনকে অবান্চিত ঘোষনার পর সেই সব নেতারা ডাক পেয়েছেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে শরিফ উদ্দিনের বাস ভবন গোদাগাড়ীতে ডাকেন। আবার অনেকেই কোন ভাবেই যেতে রাজি না। কারন অবান্চিত করা হয়েছে শরিফ উদ্দিনের রাজনৈতিক প্রজ্ঞার অভাব , নেতৃত্বে অদক্ষতা, হাতেগোনা কয়েকজনের কথায় পকেট কমিটিসহ ইত্যাদি ইত্যাদি কারনে। এসব গুনাবলী না থাকার কারনে বিশাল সভা করে অবান্চিত করা হয়েছে। এজন্যই মুলত তিনি ডেকেছেন। তার উচিৎ ছিল যারা অবান্চিত করেছে সে সকল নেতাকর্মীদের নিয়ে বসা। সেটা না করে হাতেগোনা কয়েকজনকে ডেকেছেন। এটা করে তিনি আরো বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছেন। জানা গেছে, চলতি মাসের হিন্দু সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দূর্গা পুজা পরিদর্শনে আসবেন অবশরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল শরিফ উদ্দিন। তিনি শুধু উপজেলার কামারগাঁ ইউপির মন্দির পরিদর্শন ও মতবিনিময় করবেন। কিন্তু কামারগাঁ ইউপি বিএনপির বৃহত্তর অংশকে কিছুই বলা হয় নি। এরই প্রেক্ষিতে ইউপি বিএনপির বৃহত্তর অংশের সভাপতি খলিলুর রহমান খলিল ও সম্পাদক ডায়মন্ড এবং উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মালেক মন্ডলসহ সিনিয়র নেতারা প্রতিবাদে হাতিনান্দা স্কুল মাঠে বিশাল সভা করে মেজর শরিফকে অবান্চিত ঘোষনা করেছিলেন। যা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে প্রচুর ভাইরাল হয়। বৃহত্তর অংশের সভাপতি খলিল, ডায়মন্ড, মালেক মন্ডলসহ নেতারা, সাব বলেছিলেন মেজর শরিফ উদ্দিন কে হাতেগোনা কয়েকজন নেতা পকেট বন্ধি করে রেখেছেন। তিনি কামারগাঁ ইউপির মন্দির পরিদর্শন করবেন তাও আমাদের বলেন নি। এরই প্রতিবাদে আমরা সভা করে মেজর শরিফকে অবান্চিত ঘোষনা করলাম। ওইদিন এসকল নেতারা আরো বলেছিলেন, মেজর শরিফ রাজনীতির কিছুই বোঝে না। ভায়ের নাম ভাঙ্গিয়ে দল করতে এসে চরম তাকে বিভক্ত করেছেন। তার রাজনীতি বা এমপি ভোট করার কোন যোগ্যতা নাই। দলের কঠিন মুহুর্ত্বে সঠিক নেতৃত্ব দিতে পারেন না, আর তিনি কোন অধিকারে ভোট করবেন। তিনি যাদের কথায় এভাবে দল পরিচালনা করছেন তাদেরকে নিয়ে যেন নির্বাচন করেন। আজ কেন আমাদের ডাকা হচ্ছে, আমরা তো তার প্রজ্ঞাহীন নেতৃত্ব মানতে নারাজ। ওআমরা যখন অবান্চিত করলাম, তখন তার ঘুম ভাঙ্গছে। পূজাকে কেন্দ্র করে এক কামারগাঁ অবান্চিত করেছে, এবার আরো কয়েক ইউপিতেও অবান্চিত হবেন তিনি। যতদিন দলে বিভক্ত ততদিন আমাদের কাছে অবান্চিত তিনি। যারাই বিএনপিকে প্রতিষ্ঠিত করেছে তাদেরকেই তিনি দূরে রেখেছেন। উল্লেখ্য, শারদীয় দূর্গা পুজার নবমীর দিন ছিল চলতি মাসের ৪ঠা অক্টোবর মঙ্গলবার। নবমীর দিনে মেজর শরিফ উদ্দিনকে দুপুরের দিকে কামারগাঁ ইউপি বিএনপির বৃহত্তর অংশ অবান্চিত ঘোষনা করেন। তবে তিনি মন্দির পরিদর্শনে এসেছেন। কিন্ত অবান্চিত হওয়ার আট দিনের মাথায় সেই সকল নেতাদের ডাকেন আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে। একটি সাদা কালারের হাইস মাইক্রোবাসে ১০ থেকে ১২ জন নেতা যান।