ডাকাত পালনের দায়িত্ব নিয়েছেন অর্থমন্ত্রী: বিএনপি

অর্থমন্ত্রী জনগণের করের টাকা দিয়ে লুটপাটকারী ও ডাকাতদের পালনের দায়িত্ব নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।
দলটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও মূখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেছেন, “অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বাংলাদেশের অর্থনীতিকে বড় ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছেন। রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংকগুলোকে হরিলুটে পরিণত করে ফোকলা বানিয়েছেন, আবার যারা ওই লুণ্ঠনের সঙ্গে জড়িত তাদের পুনঃ নিয়োগ দিয়েছেন। এজন্য তাকে জবাবদিহি করতে হবে।”
শনিবার বিকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।
আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, “আবুল মাল আবদুল মুহিত অর্থমন্ত্রী থাকা অবস্থাতেই বাংলাদেশের অর্থনীতিকে বড় ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছেন। পরে তা আর সামাল দিতে পারেননি। ব্যাংকগুলোকে ফোকলা করে দিয়েছেন। যার ফলে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংকগুলো ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছে।”
তিনি বলেন, “বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংকগুলোর এমন অবস্থা ছিল না। লাভজনক অবস্থায় ছিল। সোনালী ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক এই অবস্থায় পড়ার কথা না। এগুলোকে সরকার একটি হরিলুটে পরিণত করেছে। হরিলুটকারীদের অর্থমন্ত্রীকে ডাকাত বলেছেন। কিন্তু তিনি এই ডাকাতদের ধরতে পারছেন না কেন?।”

 
রিপন বলেন, “ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের বোর্ড সদস্যরা এই লুণ্ঠনে সহায়তা করেছেন। তৎকালীন বেসিক ব্যাংকের চেয়ারম্যানকে এই অভিযোগে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সোনালী ব্যাংকের যারা হলমার্কের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তাদের সরে যেতে সুযোগ দিয়েছে। এদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।”

 
রিপন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, “এদেরকেই আবার পুনরায় নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। কিসের যোগ্যতা বলে এদের আবার পরিচালনা পর্ষদে আনা হচ্ছে। সরকারের জবাবদিহিতা না থাকায় দেশে লুটপাটতন্ত্র চালু হয়েছে। এসব কাজে সরকারের ভূমিকা রয়েছে।”

 
অর্থমন্ত্রীর সমালোচনা করে তিনি বলেন, “দেশের জনগণের করের টাকা দিয়ে এই ডাকাতদের পালনের দায়িত্ব নিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। আবুল মাল আবদুল মুহিতই পুরো অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দিয়েছেন। এর জন্য তাকে জবাবদিহিতা করতে হবে। এই লুটপাটতন্ত্র চলতে পারে না।”