শত্রুদেশ থেকে গোয়েন্দাদের সরিয়ে নিয়েছে যুক্তরাজ্য

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার সাবেক ঠিকাদার এডওয়ার্ড স্নোডেনের ফাঁস করা নথিতে থাকা অত্যন্ত গোপনীয় তথ্য রুশ ও চীনারা উদঘাটন করে নেয়ার পর ‘শত্রুভাবাপন্ন দেশেগুলো’ থেকে নিজেদের গোয়েন্দা প্রতিনিধিদের সরিয়ে নিয়েছে যুক্তরাজ্য। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের দপ্তর, দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও গোয়েন্দা বিভাগগুলোর জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে রোববার এ খবর জানিয়েছে দ্য সানডে টাইমস। স্নোডেনের কাছে থাকা ১০ লাখেরও বেশি গোপনীয় নথি মস্কোর হাতে পড়ার পর জরুরীভাবে নিজেদের গোয়েন্দাদের সরিয়ে আনা ছাড়া অন্য কোনো পথ খোলা ছিলো না বলে সানডে টাইমসকে জানিয়েছে পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, পরিস্থিতির চাপে সরাসরি অভিযানের জন্য নিয়োজিত গোয়েন্দাদের সরিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছে যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থা এমআইসিক্স। মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স সেকশন সিক্স বা এমআইসিক্স, বিদেশে যুক্তরাজ্যের স্বার্থরা ও স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট অভিযান পরিচালনা করে থাকে। স্নোডেনের ফাঁস করার নথির পরিমাণ বিবেচনায় এটি যুক্তরাষ্ট্রের গোপন নথি ফাঁসের অন্যতম বড় ঘটনা। এ ঘটনার দায়ে স্নোডেনকে বিচারের মুখোমুখি করে তার শাস্তি নিশ্চিত করতে চাইছে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু ২০১৩ সালে দেশ থেকে পালিয়ে রাশিয়ায় রাজনীতিক আশ্রয় নিয়ে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের এই পলাতক গোয়েন্দা। ফাঁস করা ওইসব গোপন নথির তথ্য চীনারাও উদঘাটন করেছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা। এসব নথিতে গোয়েন্দা কৌশলের বিস্তারিত তথ্য দেওয়া আছে, আর এসব তথ্য থেকে যুক্তরাজ্যের ও যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দাদের শনাক্ত করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন তারা।
তবে এসব তথ্য ফাঁস হলেও ‘কারো কোনো তি হয়নি’ বলে দাবি করেছেন ওই কর্মকর্তারা। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, এ বিষয়ে যোগায়োগ করা হলে ক্যামেরনের দপ্তরের এক মুখপাত্র বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলতে রাজি হননি, অপরদিকে মন্তব্যের জন্য অনুরোধ করা হলেও যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা বিভাগগুলো সাড়া দেয়নি। তবে যুক্তরাজ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সানডে টাইমসকে বলেছেন, “স্নোডেনের হাতে রক্ত লেগে আছে।”