বিজিবি নায়েক আবদুর রাজ্জাকের ছেলে সন্তান জন্ম চলছে উদ্বেগ

নাটোর সংবাদদাতা : মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির হাতে আটক বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজিবি) এর নায়েক আবদুর রাজ্জাকের নাটোরের বাড়িতে রোববার সকালে জন্ম হয়েছে তার তৃতীয় সন্তানের। ছেলে সন্তানের জন্মের পরও এই পরিবারে নেই কোনো আনন্দ উচ্ছাস। পরিবার জুড়ে চলছে উদ্বেগ আর উৎকন্ঠা। আবদুর রাজ্জাককে উদ্ধারে সরকারের উল্লেখ যোগ্য কোনো পদক্ষেপ না দেখায় হতাশ হয়ে পড়েছেন তার বৃদ্ধ বাবা তোফাজ্জ্বল হোসেন তারা মিয়া, মা বুলবুলি বেগম ও স্ত্রী আসমা বেগম। রবিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জেলার সিংড়া উপজেলার বলিয়াবাড়ী গ্রামে নায়েক আবদুর রাজ্জাকের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় সেখানে চলছে শোকের মাতম। সন্তানের ভবিষ্যৎ চিন্তায় অঝোরে কাঁদছে তার পিতা ও মাতা। স্বামীর অবস্থা চিন্তা করে জ্ঞান হারাচ্ছেন সদ্য মা হওয়া আসমা বেগম। বাবার জন্য কাঁদছে নায়েক রাজ্জাকের বড় দুই সন্তান রাকিবুল হোসেন ও রিতু মনি।নায়েক আবদুর রাজ্জাকের পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী এ সময় সাংবাদিকদের জানায়, ১৬জুন মঙ্গলবার রাতেও সে বাড়িতে ফোন করে বাবা-মা ও স্ত্রীর সাথে কথা বলেছে। পরের দিন বুধবার ভোরে নাফ নদীতে অন্য ছয় সহকর্মীর সাথে টহল দেয়ার সময় মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাদের উপর হামলা করলে একজন গুলিবিদ্ধ হয় এবং রাজ্জাককে অপহরণ করে। বিজিবি-পুলিশ বা সরকারের কেউ রাজ্জাকের পরিবারকে এই খবর দেয়নি। সিঙ্গাপুরে বসবাসকারী আবদুর রাজ্জাকের মামা মো. ভুট্টু মিয়া ফেসবুকে ভাগ্নে রাজ্জাকের হাতকড়া পড়া নাকে রক্ত মাখা ছবি দেখে তার গ্রামের বাড়ি নাটোরের সিংড়া উপজেলার বলিয়াবাড়ী গ্রামে পরিবার-পরিজনের মাঝে প্রথম খবর দেন। তার মাধ্যমেই পরিবারের লোকজন জানতে পারেন নায়েক রাজ্জাককে ধরে নিয়ে গেছে। আটক বিজিবি সদস্য নায়েক আবদুর রাজ্জাককে ৫দিনেও ফেরত দেয়নি মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী। পরে ফেসবুকে শিকল দিয়ে বাঁধা হাতকড়া পরা ছবি দেখে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বহুগুণে বেড়ে গেছে আবদুর রাজ্জাকের পরিবারের মাঝে। তারা দ্রুত বিজিবি নায়েক আবদুর রাজ্জাককে দেশে ফিরিয়ে এনে পরিবারের মাঝে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। সরকারের তেমন কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ না দেখতে পেয়েও তারা হতাশা প্রকাশ করেছেন। তার বাবা তোফাজ্জ্বল হোসেন তারা মিয়া বলেছেন, দেশের প্রধান চাইলে সব করতে পারে। আমার ছেলে দেশের জন্য দায়িত্ব পালণ করতে গিয়ে আটক হয়েছে এখন দেশ তার জন্য কিছু করছে না কেন ? তিনি বলেন, টিভিতে নানাজন নানা কথা বলছে, এসব শুনতে চাইনা, আমি আমার ছেলেকে ফিরে পেতে চাই। তার মা বুলবুলি বেগম বলেছেন, আটকের আগে ছেলের সাথে কথা হলেও গত ৫দিনেও বিজিবি ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিবারের সাথে কেউ কোনো যোগাযোগ করেনি। আবদুর রাজ্জাক আটকের পর রোববার সকাল ১১টার দিকে তার একটি ছেলে সন্তান জন্ম নিলেও সেই পরিবারে নেই আনন্দ। স্বামী আটকের খবরের পর থেকেই তার স্ত্রী আসমা বেগম হয়ে পড়েছেন নির্বাক।নাটোরের পুলিশ সুপার বাসুদেব বণিক বলেছেন, বিজিবি সদস্য আবদুর রাজ্জাকের পরিবার এবং বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। দ্রুত বিজিবি সদস্য আবদুর রাজ্জাককে পরিবারের মাঝে ফিরে আনতে সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে।