পলাশবাড়ী প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

প্রতিনিধি (পলাশবাড়ী), গাইবান্ধা : পলাশবাড়ী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারী আবু বক্কর সিদ্দিকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কাজের নামে শিক্ষকদের নিকট থেকে উৎকোচ গ্রহন,একক ভাবে শিক্ষা অফিস নিয়ন্ত্রন, শিক্ষক হয়রানী, নিয়মিত অফিসে না আসা,নিজের খেয়াল খুশিমত অফিস করা, ভিআইপি স্টাইলে চলা-ফেরা করাসহ যতসব অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ দেখার কেউ নেই । জানা যায়, অফিস সহকারী আবু বক্কর সিদ্দিক একই স্টেশনে দীর্ঘদিন যাবৎ কর্মরত থাকায় তার চলা-ফেরা, কথা-বার্তায় রয়েছে ফরমায়েশি ভাব। সে শিক্ষকদের শিক্ষকই মনে করেন না, কাজ করে দিতে চেয়ে টাকা নেয়ার পর দিনের পর দিন তাদের হয়রানি করছে। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে শ্ক্ষিক বদলী, টাইমস্কেল, রিক্রেশন, মাসিক কন্টেডেন্সী, উপবৃত্তি কন্টেডেন্সী,বই পরিবহন, বার্ষিক ক্রিড়া ও সদ্য জাতীয় করনকৃত শিক্ষকদের বকেয়া বিল এমনকি বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট ধরাতেও গুনতে হয় মোটা অংকের উৎকোচ। নাম প্রকাশ না করার সত্ত্বে একাধিক শিক্ষক জানান,ওই অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে পাহাড় সমান অনিয়ম ও দুর্নীতি থাকলেও তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খোলার সাহস পান না। কারণ একদিকে রয়েছে তার অজ্ঞাত খুটির জোর, অপরদিকে রয়েছে শিক্ষা অফিসারের উদাসিনতা। ভুক্ত ভোগী একাধিক শিক্ষকের অভিযোগ নিজের সুবিধার্থে বদলীর জন্য অফিস সহকারী আবু বক্কর সিদ্দিককে মোটা অংকের উৎকোচ দিলেও বদলি করে দিতে পারেনি। এখন টাকা ফেরত দেয়ার কথা বলে দিনের পর দিন কালক্ষেপন করে হয়রানি করছে। এদিকে ওই অফিস সহকারী নিজের খেয়াল খুশিমত অফিসে আসলে প্রায়ই দেখা যায় শিক্ষকরা তাকে ঘিরে ধরে রেখেছে। এ ব্যাপারে একাধিক শিক্ষকের সাথে আলাপ করে জায় যায়, অফিসে শিক্ষকদের টাইমস্কেল,বকেয়া বিল, বিদ্যালয়ের শ্লিপ ও মেরামত ভাউচার জমা দেয়ার কাজ চলছে, অফিস সহকারী আবু বক্কর সিদ্দিক নিয়মিত অফিসে না আসায় একটু ভিড় বেশি হয়। এ ব্যাপারে অফিস সহকারী আবু বক্কর সিদ্দিক নিজেকে ভালো ডাক্তার ও শিক্ষকদের রোগীর সাথে তুলনা করে বলেন, ভাই আমার প্রেসক্রিপশন ভালো তাই রোগীর চাপ বেশী। অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে এতসব অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আরিফ উদ্দীন জানান, এটাতো আমাদের বিষয়,আপনার সমস্যা কোথায় ?