সিদ্ধিরগঞ্জে অস্বাস্থ্যকার পরিবেশে বিক্রি হচ্ছে ইফতার সামগ্রী

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জে রমজানের শুরু থেকে প্রতিটি বাজাওে ও বিভিœন মহল্লার অলি- গলিতে বসেছে ইফতার সামগ্রী বিক্রির দোকান। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খোলা অবস্থায় এসব ইফতার সামগ্রী স্বাস্থের জন্য ক্ষতিকর। রাস্তার পাসে বসা এসব খাবারের নেই কোনো সংরক্ষন ব্যবস্থা। যার ফলে মশা-মছি ও ধুলোবালি ইফতার সামত্রীর উপর পরে ইফতার সামগ্রী নষ্ট করছে যা ক্রয় করে খাচ্ছে রোজাদাররা। রজমানের শুরু থেকেই প্রতিটি মহল্লার বাজারে জমে উঠেছে ইফতারসহ বিভিন্ন খাবার বিক্রির দোকান। এসব দোকানে মড়ি, বুট, পেয়াজুসহ মিস্টি, জিলাপি ও আরো অভিজাত খাবারে জমে উঠেছে। যার যা সার্মথ্য সেভাবেই ক্রয় করছেন নিজের পছন্দের ইফতার। কিন্তু রাস্তার পাসে খোলা মেলা এসব ইফতার কতটুকু সাস্থ্যসমত তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে রোজাদাররা। রমযান মাসে বাজারের রাস্তায় রাস্তায় দেখা মিলে এসব খোলামেলা ইফতার বিক্রি হওয়া অসংখ্য ইফতারের দোকান সমূহ। যার মধ্যে একটিরও নেই খাবার সংরক্ষন ব্যবস্থা। রাস্তার বসা এসব দোকানে চলাচল রত যানবাহনের বাতাসে উড়ে আসা ধুলোবালি পড়ছে ইফতার সামগ্রীর উপর যা খালি চোখে দেখা যায় না। আর মশা-মছি সেটা চোখে দেখা গেলেও নেই কোনো অপসারনের ব্যবস্থা। দৈনন্দিন খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষগুলো এসব খাবার খেয়েই পার করছেন রহমতের এ রমযান মাস। এসব খোলা দোকানের আইনি নিষেধ থাকা সত্ত্বেও প্রসাশনি নজরদরি না থাকায় ক্ষুভ প্রকাশ করেছে রোজাদাররা। ফলে দিন দিন বেড়েই চলছে এসব খোলামেলায় বিক্রি হওয়া ইফতার দোকান। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এসব দোকানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রাশসনের প্রতি দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

সিদ্ধিরগঞ্জে ফিরোজার জমি না থাকলেও তার
নামে অবৈধ নামে গ্যাস লাইন সংযোগ
প্রতিনিধি নারায়ণগঞ্জ : সিদ্ধিরগঞ্জে ফিরোজা বেগমের নামে এক মহিলার কোনো জমি না থাকলেও তিতাস কর্তৃপক্ষ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তার নামে গ্যাস লাইন সংযোগ দিয়েছে। জামির কাগজপত্র ভুয়া হওয়ায় সম্প্রতি তার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করলেও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে নি কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় এলাকায় ক্ষোভ বিরাজ করছে। জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পূর্বপাড়া এলাকার আবদুল মিয়ার স্ত্রী ফিরোজা বেগম সিদ্ধিরগঞ্জ মৌজাস্থিত সিএস ও এসএ ৪৭৬ ও আর এস ৪৮৯৩ নং দাগের ১৫ শতাংশের কাতে ১১ শতাংশ জমি দখল করে ভুয়া নামজারি (নং ২৩০৯/১৯৯৭-১৯৯৮) করে বসবাস করে আসছিল। এ জমির মূল মালিক সিদ্ধিরগঞ্জের ওমরপুর এলাকার মৃত হাজি খালেক সাউদের ছেলে খবির উদ্দিন জানতে পেরে আদালতে মিস করলে আদালত বিগত ২৪/০৯/২০০০ সালে নামজারি বাতিল করে। ওই খবির উদ্দিন তার নামে নামজারি (নং ৬২৯২/০৪-০৫) করে উল্লেখিত জমির খাজনাদি স্থানীয় তহশিল অফিসে পরিশোধ করলেও মালিকানা বুঝে পায়নি। কিন্তু ফিরোজা বেগম এ জমি দখলে রেখে অদ্যবাদি বসবাস করে আসছে। এরইমধ্যে সু-চতুর ফিরোজা বেগম তার নামে ভুয়া কাগজপত্র দাখিল করে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ নিয়ে দখলে রয়েছে। ফিরোজার দখলে থাকা জমির কাগজপত্র ভুয়া হওয়ায় সম্প্রতি তার বিদ্যুৎ সংযোগ (কাস্টমার নং-১৪৯২৭০৫৯) ডিপিডিসি কর্তৃপক্ষ বিচ্ছিন্ন করেছে। কিন্তু তিতাস কর্তৃপক্ষ ফিরোজার বাড়িতে দেওয়া গ্যাস সংযোগ (সংকেত নং-১০৬৫১৬৯০)টি বিচ্ছিন্ন করেনি। গ্যাস সংযোগের সময় মূল মালিক খবির উদ্দিন বিষয়টি তিতাস কর্তৃপক্ষকে জানালেও কর্তৃপক্ষ গ্যাস সংযোগ দেয় বলে খবির উদ্দিন জানায়। এ সময় ফিরোজা বেগম তাকে হুমকি প্রদান করলে এ ঘটনায় খবির উদ্দিন সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (নং- ৮৯৫) করে। এ নিয়ে এলাকায় উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে সংযোগ দেওয়া গ্যাসের লাইন বিচ্ছিন্ন করার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।