বাঘায় তিন দিনের গুঁড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে আম চাষিরা হতাশা

রাজশাহীসংবাদদাতা : : রাজশাহীর বাঘায় তিন দিনের টানা গুঁড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে আম চাষিরা হতাশা হয়ে পড়েছেন। বৃষ্টির কারণে চাষিরা গাছ থেকে আম নামাতে পারছে না। ফলে আম গাছে পেকে পড়ে নষ্ঠ হয়ে যাচ্ছে। এমনিতে এবছর দফায় দফায় শিলাবৃষ্টি ও কালবৈশাখী ঝড়ে আম ঝরে পড়ে চাষিদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তারপর আবার টানা দিন যাবৎ বৃষ্টি হচ্ছে। উপজেলায় অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার আমের ব্যাপক ফলন লক্ষ্য করা যাচ্ছিল। ভালো ফলনের আশায় চাষিরা আম নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছিলেন। কিন্তু হঠাৎ তিন দিনের গুঁড়ি গুড়ি বৃষ্টি শুরু হয়েছে। উপজেলায় আমের জন্য বিখ্যাত। এ আম সারাদেশে পরিচিত। বৃষ্টির কারণে চাষিদের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। ফলে আম চাষিরা চরম হতাশায় ভুগছেন।
উপজেলার হাবাসপুরের আম চাষি আমজাদ হোসেন জানান, এবার বাগানে প্রচুর মুকুল এসেছিল। চৈত্রের খরতাপের মধ্যে বৃষ্টি হয়েছিল। যা আমের বাম্পার ফলনের জন্য উপযোগী ছিল। সেই মুকুল থেকে আমের সবুজ গুটি দানা বেঁধে পূর্নাঙ্গ আমে পরিণত হয়েছে। আমের বাম্পার ফলনের আশায় এবার আম নামানো নিয়ে ব্যাপক মনযোগী ছিলাম। কিন্তু হঠাৎ তিন দিনের বৃষ্টিতে সেই আশা আর স্বপ্ন নিমিষে পন্ড হয়ে যাচ্ছে। পুরো পরিবার আমের ওপর নির্ভরশীল। বৃষ্টিতে আমের ক্ষতি হয়ে যাওয়ায় পরিবার নিয়ে দুশচিন্তায় আছি। এ ছাড়া আমজাদ হোসেনের মতো উপজেলায় সব বাগান মালিকের একই অবস্থা। উপজেলায় ফজলি, আশ্বিনা, গোপালভোগ, ক্ষিরসাপাত, লকনা, ল্যাংড়া, লক্ষণভোগ, আ¤্ররুপালি, হিমসাগর, গুটি, তোতাপরী, দুধসর, মোহনভোগসহ বিভিন্ন জাতের আম চাষ হয়েছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাবিনা বেগম জানান, উপজেলায় আট হাজার ৩৬৮ হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়েছে। ইতঃপূর্বে কালবৈশাখী ঝড় ও দফায় দফায় শিলা বৃষ্টিতে প্রায় ১৬ কোটি ৭৩ লক্ষ ৬ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে চাষিদের। আবারও টানা বৃষ্টিতে আম গাছ থেকে আম নামাতে না পারায় মোকামে সময়মতো পাঠাতে পারছে না। ফলে কিছুটা ক্ষতি সম্মুখে পড়েছে।