নীতিমালা অমান্য করে পাইকেরছড়া বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল জাতীয়করনের পায়তারা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: সরকারি নীতিমালা অমান্য করে ভুরুঙ্গামারীতে অস্তিত্বহীন পাইকেরছড়া বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক জাহিদুল ইসলাম পলাশের বিরুদ্ধে নিয়োগ বানিজ্যেসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। পাইকেরছড়া ইউনিয়নের বাসিন্দা অত্র স্কুলের নির্বাহী পরিচালক জাহিদুল ইসলাম পলাশের দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এবং অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ ইসমাইল এর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। অভিযোগে গিয়ে জানা গেছে, কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের মাদক সেবনকারী জাহিদুল ইসলাম পলাশ নিজে নির্বাহী পরিচালক সেজে তার সহধর্মিণী শারমিন জাহান কে প্রধান শিক্ষক করে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অমান্য করে ২০১৮খ্রিঃ স্কুল প্রতিষ্ঠা করে গোপনে শিক্ষক কর্মচারী ২৪জন নিয়োগ দিয়ে কোটি টাকার বাণিজ্য করেছে। অপরদিকে সরকার ঘোষিত প্রতিবন্ধীতা সম্পর্কিত বিশেষ শিক্ষা নীতিমালা ২০১৯খ্রিঃ অনুযায়ী সম্প্রতি গত ১৮ডিসেম্বর ২০১৯খ্রিঃ সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের একটি প্রজ্ঞাপন প্রকাশ হয়। প্রজ্ঞাপন মোতাবেক প্রতিবন্ধী স্কুলগুলোর পক্ষ থেকে অনলাইনে সঠিক তথ্যভিত্তিতে আবেদন চাওয়া হয়। তৎসহ সংশ্লিষ্ট উপজেলা নিবার্হী অফিসার কর্তৃক একজন মনোনীত উপজেলা কর্মকর্তার উপস্থিতিতে ১জানুয়ারি ২০২০খ্রিঃ দুপুর ১২টা থেকে ১২টা ৫মিনিটের মধ্যে নিশ্চিত একটি ভিডিও ফুটেজ অপলোড করতে হবে মর্মে নিদের্শনা দেয়া হয় এবং উক্ত ভিডিও ফুটেজে ছাত্র ছাত্রীদের Assemble ছবি, শিক্ষক কর্মচারিদের ছবি, প্রত্যক ক্লাশ রুমে ছবি, সম্পন্ন স্কুল ভবনের ছবি, ভিডিওতে দেখাতে হবে। এদিকে পাইকেরছড়া বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক জাহিদুল ইসলাম পলাশের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ায় ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নিবার্হী অফিসার প্রতিবন্ধী নীতিমালা-২০১৯খ্রিঃ অনুযায়ী উক্ত প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী পরিচালক পলাশকে তার স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির তালিকা, নিয়োগ, যোগদান, দৈনিক জাতীয় পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রদান, NIID, NoN- NIID প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের ধরন শনাক্ত করণ, জরিপ নাম্বার, ২০১৯খ্রিঃ অনুযায়ী পাঠ্যক্রম ও কারুকলাম দৈনন্দিন নিজ কার্যক্রম সম্পাদন সংক্রন্ত দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণের কার্য বিবরনী, বাৎসরিক অডিট রিপোর্টসহ অন্যান্য কাগজপত্র সংযুক্ত করার নিদের্শনা থাকলেও দুর্নীতিবাজ পলাশ তার বিদ্যালয়ের উক্ত কাগজপত্র ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে দাখিল করতে পারে নাই। সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের প্রজ্ঞাপন মতে ১জানুয়ারি ২০২০খ্রিঃ দুপুর ১২টা থেকে ১২টা ৫মিনিটের মধ্যে ভিডিও ফুটেজ অপলোড করার কথা থাকলেও পাইকেরছড়া বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয় অস্তিত্বহীন এবং ছাত্র ছাত্রীদের উপস্থিতি, প্রতিবন্ধীদের সহায়ক উপকরণ সমুহ না থাকায় ওই নির্ধারিত সময়ে ভিডিও প্রোগ্রাম করতে পারে নাই। পরবর্তী কয়েকদিন পর অন্যস্কুল থেকে ভারা করে ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে নামমাত্র একটি ভিডিও ফুটেজ তৈরী করে। যা আবেদন সাথে অপলোড করেন বলে ভুক্তভোগীরা জানান। পাইকেরছড়া ইউনিয়নের বাসিন্দা ও প্রতিবন্দী অভিভাবক আবুল কালাম, আব্দুল জব্বার, রুবেল, সোহেল রানা, হাফিজুর রহমানসহ একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করেন বলেন, জাহিদুল ইসলাম পলাশ নির্বাহী পরিচালক হয়ে তার স্ত্রী শারমিন জাহান কে প্রধান শিক্ষক বানিয়ে ২৪জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগ দিয়ে কোটি টাকার রমরমা ব্যবসা করেছে। ওই বিদ্যালয়ের নেই অবকাঠামো ও প্রতিবন্ধী ছাত্র ছাত্রী। গত ১জানুয়ারি ২০২০খ্রিঃ এই স্কুলে কোন ভিডিও অনুষ্ঠান হয়নি। স্কুলের নির্বাহী পরিচালক জাহিদুল ইসলাম পলাশের ব্যাপক অনিয়মের বিরুদ্ধে সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এবং অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ ইসমাইল এর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ব্যাপারে উপজেলা নিবার্হী অফিসার এস এম মাগফিরুল আব্বাসী (সাবেক) মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করাসহ ভুরুঙ্গামারী উপজেলা সমাজসেবা অফিসার জামাল হোসেন এ বিষয়ে বলেন, সরকারি নিয়মকানুন না মেনে ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এলাকায় পাইকেরছড়া বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হয়। এই বিদ্যালয়ে নেই অবকাঠামো ও প্রতিবন্ধী ছাত্র ছাত্রী। তদন্ত সাপেক্ষে ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়ম পাওয়ায় প্রতিবেদন রিপোর্ট প্রদান করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের হস্তক্ষেপে কামনা করছি।

সর্বশেষ সংবাদ