কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে সার ডিলারদের সেচ্ছাচারীতায় ভোগান্তিতে কৃষক

সাইফুর রহমান শামীম,, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে চলতি আমন মৌসুমে কৃষকদের মাঝে ন্যায্য মূল্যে সার প্রদানের জন্য উপজেলায় বিসিআইসি হতে সাতটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।ভরা মৌসুমে কৃষকরা যাতে সঠিক সময়ে সার নিতে পারে সেজন্য সকাল ৭ টা হতে সন্ধ্যা ৭ পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার নিয়ম থাকলেও তা মানছে না ফুলবাড়ী উপজেলার বিসিআইসি অনুমোদিত সার ডিলারগন।ফলে সার পেতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে কৃষকদের। ডিলারগন নিয়মিত দোকান না খোলা রাখায় কৃষকরা নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে সার কিনে জমিতে প্রয়োগ করছেন। সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে প্রতি বস্তায় ২০ থেকে ৫০ টাকা বেশি গুণতে হচ্ছে কৃষকদের । ভাঙ্গামোড়ের কৃষক আদম আলী (৩৫), শাহিন আলম (৩৭) জানান, খুচরা বাজার থেকে ইউরিয়া প্রতি বস্তা ৮২০ টাকা দরে কিনে জমিতে প্রয়োগ করছেন। শাহ বাজারের খুচরা সার বিক্রেতা শহিদুল ইসলাম বলেন, ফুলবাড়ী সদরের সৈকত ট্রেডার্স অধিকাংশ সময় বন্ধ থাকে। ফলে অন্যত্র হতে বেশি দামে সার কিনে বেশি দামে বেচতে হয়। নিয়মিতভাবে দোকান না খোলার বিষয়ে অনুমোদিত সার ডিলার মেসার্স সৈকত এন্টার প্রাইজের ম্যানেজার মিজান জানান, ২০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে এসে দোকান খুলতে দেরি হয়ে যায়। একই অবস্থা আবুল হোসেন ট্রেডার্স, প্রভাত ট্রেডার্স, মনোয়ার ট্রেডার্সসহ বাকি ডিলারদের। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহাবুবুর রশিদ জানান, ভরা মৌসুমে সার ডিলারগন নিয়মিত দোকান না খোলার বিষয়ে আমিও অভিযোগ পেয়েছি। তারই ভিত্তিতে সব সার ডিলারগনকে দোকান খোলা রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাবাব ফারহান জানান, চলতি আমন মৌসুমে কৃষকদের চাহিদা মত সার প্রদানের জন্য প্রতিটি ডিলারকে আগে থেকেই সর্তক করা হয়েছে।আমরা নিয়মিতই বাজার তদারকি করছি।নির্ধারিত দোকান খোলা রাখার বিষয়ে সার ডিলারগনের সাথে আলোচনা চলমান আছে।