বেকারভাতার আশ্বাসে ৪৮ লাখ টাকা নিয়ে ‘পালালেন’ আ. লীগ নেতা

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে বেকারভাতা পাওয়ার আশ্বাস দিয়ে গ্রামের যুবক-যুবতীদের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আজাদুল ইসলামের বিচার দাবিতে ফুঁসে উঠেছেন ভুক্তভোগীরা। মানববন্ধন করে অবিলম্বে তার গ্রেফতারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

সরকারিভাবে বেকারভাতা পাইয়ে দেয়ার আশ্বাসে, গ্রামের বেকার যুবক-যুবতীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতা আজাদুল ইসলামের বিরুদ্ধে এবার রাস্তায় আন্দোলনে নেমেছেন ভুক্তভোগীরা।

বুধবার (০২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শহরের ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের উত্তর বাসস্টান্ড এলাকায় মানববন্ধন করেন তারা। এ সময় তারা আজাদুলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থার পাশাপাশি দল থেকে বহিষ্কারেরও দাবি জানান।

বেকার যুবকরা জানান, টাকা দেওয়ার কথা বলে আমাদের থেকে টাকা নিয়েছি। পরে আমাদেরকে ব্যাংকের চেক দিয়েছি; সেখানে গিয়ে অ্যাকাউন্টে টাকা নেই।

কর্মসূচির সঙ্গে একাত্মতা জানিয়ে স্থানীয় যুবলীগ নেতা-কর্মীরাও বিচার চান আজাদুলের।

স্থানীয় যুবলীগের নেতাকর্মীরা জানান, যে এই কাজটা করেছে; সে যদি যুবলীগের নেতাও হয়, তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় নেয়া হোক

এ ব্যাপারে পলাশবাড়ী থানার ওসিকে একাধিকবার ফোন করা হলেও দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

১ লাখ ৬০ হাজার টাকা বেকার ভাতা পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ৩০ জন যুবক-যুবতীর কাছ থেকে ৪৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ আজাদুলের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় উপজেলা যুবলীগ সভাপতির পদ থেকে বহিস্কার করা হলেও বর্তমানে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল রয়েছেন। পাশাপাশি স্থানীয় একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লাইব্রেরিয়ান পদেও কর্মরত।