বগুড়া গাবতলীতে কিশোরীকে ধর্ষণ

গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার গাবতলীতে ১৩বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের শিকার হয়েছে। গত বুধবার সন্ধ্যারাতে উপজেলার বালিয়াদিঘী ইউনিয়নের কালাইহাটা দক্ষিণ বালুয়া খালপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, বগুড়া জেলার ধুনট থানাধীন এলাঙ্গী ইউনিয়নের বিলচাপড়ি গ্রামের মজনু মিয়ার মেয়ে কিশোরী আঙ্গুরী বেগম (১৩) ছদ্মনাম ও তার বড়ভাই ছোটবেলা থেকেই বাবা-মা ঢাকায় কাজ-কর্ম করায় গাবতলীর কালাইহাটা দক্ষিণ বালুয়া খালপাড়া গ্রামের নানা জনৈক ছহিম উদ্দিনের বাড়ীতে বসবাস করে আসছিলো। এরই একপর্যায়ে গত বুধবার রাত অনুমান ৮টায় ভিকটিম কিশোরী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে পূর্বে ওঁত পেতে থাকা বড়ভাইয়ের বন্ধু ইলেট্রিক মিস্ত্রি শাহাদুল ইসলাম সরকার (২০) তার দুই বন্ধুর সহযোগিতায় মুখ বেঁধে বাড়ীর পার্শ্ববর্তী স্থানে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে প্রতিবেশীরা টের পেলে ওই ধর্ষক ও তার সহযোগিরা পালিয়ে যায় বলে ভিকটিমের নানী জোবেদা বেগম এবং ধর্ষিতার বড়ভাই স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। ধর্ষক শাহাদুল ইসলাম একই গ্রামের মৃত তজেম সরকারের ছেলে। অপর সহযোগিরা হলো, একই গ্রামের আমিনুর সরকারের ছেলে বিপুল (১৯) এবং জাহিদুল আকন্দের ছেলে জয়নাল আকন্দ (২০)। এ ব্যাপারে বালিয়াদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলা হলে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, কালাইহাটা দক্ষিণ বালুয়া খালপাড়া গ্রামে এক কিশোরীকে ধর্ষণ করেছে বলে ভুক্তভোগী ওই কিশোরী ও তার বড়ভাই দুলাল, বাবা, নানী ও প্রতিবেশীরা তাঁকে জানালে তিনি ভুক্তভোগীদের থানায় যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ধর্ষিতার বাবা মজনুর বাদীত্বে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে। এ প্রসঙ্গে মডেল থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ধর্ষণ করার অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করার প্রক্রিয়া চলছে। মামলা হলেই দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ