শেরপুরে আওয়ামী লীগের ৪টি নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ

শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত দলীয় প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুস সাত্তারের ৪টি নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করেছে দৃর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ৮ জানুয়ারী শুক্রবার ভোর রাতের দিকে এ ঘটনা ঘটেছে। তবে এ জঘন্যতম ঘটনা প্রতিপক্ষের কিছু দৃস্কৃতিদের দ্বারাই সংঘটিত হতে পারে বলে দাবী করেছেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত নির্বাচনি অফিসগুলো পরিদর্শন করেছেন শেরপুর থানা পুলিশ।
জানা যায়, আগামী ১৬ জানুয়ারী শেরপুর পৌরসভার নির্বাচন উপলক্ষে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দীতা করছেন আওয়ামীলীগ, বিএনপি ইসলামী আন্দোলন ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ৯টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীগন। নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গড়ে তুলেছেন বিভিন্ন নির্বাচনি অফিস করেন। এসব নির্বাচনি অফিস থেকেই তাদের নির্বাচনী প্রচারণা চালানো হয়। ৮ জানুয়ারী শুক্রবার ভোর রাতের দিকে শেরপুর পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের দুবলাগাড়ী(এমপির বাসভবনের পাশে), ৬ নং ওয়ার্ডের নয়াপাড়া ও ৪ নং ওয়ার্ডের উত্তরসাহাপাড়ার কলাপট্টি এবং পৌর শিশুপার্ক এলাকায় অবস্থিত নির্বাচনী অফিসে ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করে দৃর্বৃত্তরা।
এ বিষয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নির্বাচনী প্রচারণা কমিটির নেতা ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজার রহমান ভূট্টো বলেন, নৌকার বিজয় ঠেকাতেই প্রতিপক্ষরা ঈশর্^ান্বিত হয়ে এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব আম্বিয়া বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং নৌকার প্রার্থীর নিশ্চিত বিজয় সহ্য করতে না পেরে প্রতিপক্ষরা এ জঘন্যতম ঘটনা ঘটিয়েছে। নির্বাচনী প্রচারণা নিয়ে সংঘর্ষ অত:পর নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে ঘোলাপানিতে মাছ শিকার করতে চাচ্ছে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বি প্রতিপক্ষরা। তবে স্থানীয় দলীয় ফোরামে আলোচনা করে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।
এ প্রসঙ্গে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম বলেন, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করায় ক্ষতিগ্রস্ত নির্বাচনি অফিসগুলো পরিদর্শন করা হয়েছে। দৃস্কৃতিকারীদের সনাক্তে পুলিশ তৎপর রয়েছে। তবে এখনো আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে কোন লিখিত অভিযোগ বা মামলা দায়ের করা হয়নি।