শহীদ জিয়ার নাম বাংলাদেশের জনগণের হৃদয় থেকে মুছে ফেলা যাবে না-সাবেক এমপি লালু

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাবেক এমপি মোঃ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু বলেন, খেতাব বাতিল করে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নাম বাংলাদেশের জনগণের হৃদয় থেকে মুছে ফেলা যাবে না। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নাম বাংলাদেশের জনগণ হৃদয়ে লেখা। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের এ পদক এই সরকার দেয় নাই। এই পদক স্বাধীনতার পরপর বাংলাদেশের জনগণ ভালোবেসে জিয়াউর রহমানকে দিয়েছে। জিয়াউর রহমানকে নিয়ে টানাটানি করলে হাত পুড়ে যাবে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার অপর নাম জিয়াউর রহমান। আমি বলবো জনগণের ক্ষমতা জনগণের কাছে ফিরিয়ে দিন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেন। আর জিয়াউর রহমানকে নিয়ে টানাটানি করবেন না। এই সরকার জিয়াউর রহমানকে ইতিহাস থেকে মুছে ফেলতে চায় কিন্তু তা কখনো হবে না। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত ও বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সহ নেতাকর্মীদেরকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ফরমায়েশি সাজা প্রদানের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বগুড়া জেলা বিএনপির আয়োজিত দলীয় কার্যালয়ের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বগুড়া জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল এর সভাপতিত্বে সাবেক এমপি লালু আরো বলেন, বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজা দিয়ে লাভ হবে না, এ দু’বছরের সাজা দিয়ে আপনারা কী অর্জন করলেন। জিয়াউর রহমানকে হত্যা করে অনেকে মনে করলো বিএনপি শেষ। বিএনপি শেষ হয়ে যায়নি, এখনো আছে। তখন বিএনপির হাল ধরেন বেগম জিয়া। ভবিষ্যতে তারেক রহমান হাল ধরবেন। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে মিথ্যা মামলার সাজা দেয়া হয়েছে। এই সাজা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে। প্রতিবাদ সমাবেশের আগে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা কোর্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশ বাধা দিলে নেতাকর্মীরা বাধা ভেঙ্গে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কেএম খায়রুল বাশারের পরিচালনায় প্রতিবাদ সমাবেশের বক্তব্য রাখেন এবং উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও বগুড়া পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম বাদশা, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আলী আজগর তালুকদার হেনা, জয়নাল আবেদীন চাঁন, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাহবুবর রহমান বকুল, আহসানুল তৈয়ব জাকির, এম আর ইসলাম স্বাধীন, তৌহিদুল আলম মামুন, শেখ তাহা উদ্দিন নাইন, সহিদ উন নবী সালাম, সাইদুজ্জামান শাকিল, মনিরুজ্জামান মনির, মাফতুন আহম্মেদ খান রুবেল, শাজাহানপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আঃ হাকিম, কাহালু উপজেলা বিএনপির আহবায়ক সেলিম উদ্দিন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক মাজেদুর রহমান জুয়েল, যুগ্ম আহ্বায়ক সরকার মুকুল, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু হাসান ও সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকী রিগ্যান, জেলা কৃষক দলের আহ্বায়ক আলহাজ্ব আকরাম হোসেন, সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এসএম রাসেল মামুন, শাজাহানপুর উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক নিলু, গাবতলী উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক আশরাফ হোসেন, শহর শ্রমিক দলের সভাপতি লিটন শেখ বাঘা, জেলা যুবদল নেতা আহসান হাবিব মমি, আদিল সাহারিয়া গরর্কী, হারুনার রশিদ সুজন সহ বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। খবর বিজ্ঞপ্তির।