খুনের অপরাধে সৌদি যুবরাজের বিচার করবে কিনা তা সোমবার জানাবে আমেরিকা

আমেরিকা প্রবাসী সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে খুনের অপরাধে সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের বিচার করা হবে কিনা তা সোমবার জানাবে বাইডেন প্রশাসন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ প্রসঙ্গে বলেছেন, তার প্রশাসন সৌদি আরবকে নিয়ে সোমবার একটি ঘোষণা দিতে যাচ্ছে। সৌদি যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমানের নির্দেশে সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয় বলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্বীকার করার পর এ বিষয়ে ঘোষণা দিতে যাচ্ছে ওয়াশিংটন।

খাশোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশের পর সমালোচনার মুখে রয়েছে বাইডেন প্রশাসন। বিশেষ করে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের সম্পাদকীয়তে সৌদি যুবরাজের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ না নেওয়ার কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনকে প্রত্যাখ্যান করেছে সৌদি আরব।

সৌদি আরবের ব্যাপক ক্ষমতাধর যুবরাজকে শাস্তি দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বাইডেন বলেন, সৌদি আরবের সঙ্গে সাধারণভাবে যা করতে যাচ্ছি সে বিষয়ে সোমবার একটি ঘোষণা দেওয়া হবে।

তবে এই ঘোষণার বিস্তারিত কিছু জানাননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তবে হোয়াইট হাউজের এক কর্মকর্তা ইঙ্গিত দিয়েছেন, গুরুত্বপূর্ণ কোনও পদক্ষেপের প্রত্যাশা করা হচ্ছে না।

ওই কর্মকর্তা বলেন, শুক্রবার প্রশাসন একগুচ্ছ নতুন পদক্ষেপ নিয়েছে। প্রেসিডেন্ট সোমবারের যে ঘোষণার কথা বলেছেন তাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এসব পদক্ষেপের বিস্তারিত তুলে ধরতে পারে।

২০১৮ সালের অক্টোবরে তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে নির্মমভাবে খুন হন সাংবাদিক জামাল খাশোগি। তার মরদেহ টুকরো টুকরো করে ফেলা হয়। তিনি সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কট্টর সমালোচক ছিলেন।

শুরু থেকেই হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে মোহাম্মদ বিন সালমানকে সন্দেহ করা হচ্ছে। সৌদি আরব প্রথমে এই হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করলেও পরে আন্তর্জাতিক চাপে খুনের কথা স্বীকার করে। তবে এখন পর্যন্ত মৃতদেহের সন্ধান দেয়নি সৌদি রাজপরিবার।

সৌদি যুবরাজ প্রবাসে বসবাসকারী আরও কয়েকজন সাবেক সৌদি কর্মকর্তাকে হত্যার জন্য ঘাতক স্কোয়াড গঠন করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।