বগুড়ায় সিনেমা হল মালিকদের উদ্বুদ্ধকরণ মতবিনিময় সভা

সঞ্জু রায়, স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ও এফবিসিসিআই বাংলাদেশের পরিচালক কাজী শোয়েব রশীদ বলেছেন, ভাল মানের ছবি প্রদর্শনের মাধ্যমে দেশব্যাপী সিনেমা হলগুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে ঐক্যবদ্ধভাবে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদী যে ঋণ বর্তমান সরকার হলমালিকদের দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে তা প্রাপ্তি এবং তার সুষ্ঠু প্রয়োগেও সকলের ইতিবাচক সদিচ্ছা পোষণ করতে হবে নইলে দিনশেষে সুস্থ বিনোদনের মাধ্যম চলচ্চিত্র শিল্প আর থাকবে না। আর এক্ষেত্রে সরকারের সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরের আরো আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।
‘সিনেমা হল বাঁচলে চলচ্চিত্র বাঁচবে’ প্রতিপাদ্য কে সামনে রেখে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির আয়োজনে বুধবার সকালে বগুড়া শহরের চেলোপাড়া মধুবন সিনেপ্লেক্সে উত্তরবঙ্গসহ সারাদেশের হল মালিকদের নিয়ে
আয়োজিত প্রদর্শকদের উদ্বুদ্ধকরণ মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপোরোক্ত কথাগুলি বলেন।
সিনেমা হল সংস্কার ও নতুন করে সিনেমা হল নির্মাণের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত ও বাংলাদেশ ব্যাংকের ছাড়কৃত ১ হাজার কোটি টাকার তহবিলের সুষ্ঠু ও সহায়ক ব্যবহার নিশ্চিতে করণীয় নানা দিক তুলে ধরে সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সমিতির সাংস্কৃতিক, সমাজ কল্যাণ ও আইন বিষয়ক সম্পাদক এবং মধুবন সিনেপ্লেক্স এর সত্ত্বাধিকারী আর.এম ইউনুস রুবেল।
সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল বলেন, বাংলাদেশে প্রায় দেড় হাজার সিনেমা হল চালু ছিল, কিন্তু বর্তমানে তা দেড় শতাধিকে নেমে এসেছে। বিভিন্ন বাৎসরিক উৎসবকে কেন্দ্র করে সর্বোচ্চ ২’শ থেকে ২’শ ৫০টি সিনেমা হল চালু হয় যা সত্যিই অত্যন্তু দু:খের। তিনি আরো বলেন, সময় এসেছে ইতিবাচক পরিবর্তনের তাই সিনেমা হলগুলোকে ডিজিটালাইজকরণ, দর্শকদের হলমুখী করতে দেশীয় ভাল চলচ্চিত্র নির্মানের ব্যবস্থা প্রয়োজনে ভারত থেকে ভাল মানের ছবি আমদানি করে হলেও হলগুলোকে বাঁচিয়ে রাখার ব্যবস্থা করার আহ্বান জানান তিনি। এছাড়াও সরকার কর্তৃক স্বল্প সুদে যে ঋণ দেওয়ার ঘোষণা করা হয়েছে তা সহজে প্রাপ্তি এবং তা দীর্ঘমেয়াদে পরিশোধের সুযোগ প্রদানেও সারাদেশের প্রদর্শকদের পক্ষে সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।
যুব সংগঠক সঞ্জু রায়ের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে শরফুদ্দিন এলাহী সম্রাট ও খোরশেদ আলম, কোষাধ্যক্ষ আজগর হোসেন, নির্বাহী সদস্য ফারুক হোসেন মানিক, যশোর মনিহার সিনেমা হলের মালিক মিঠু, দিনাজপুর মডার্ণ সিনেমা হলের মালিক পারভেজ, শান্তাহার মালা সিনেমা হলের মালিক মজিবর রহমান প্রমুখ। উত্তরবঙ্গে প্রথম আয়োজিত সিনেমা হল মালিকদের উক্ত মতবিনিময় সভায় এসময় উপস্থিত ছিলেন বেঞ্চমার্ক এর বাংলাদেশের প্রতিনিধি সৈয়দ ইমরান হোসেন কিরমানি, মধুবন সিনেপ্লেক্স বগুড়ার পরিচালক শায়েখুজ্জামান ইউনুস (রোহান)সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত প্রায় ৪০জন সিনেমা হল মালিক যারা প্রত্যেকে সিনেমা হল কে বাঁচিয়ে রাখতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন মর্মে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

সর্বশেষ সংবাদ