বগুড়ার সনাতন ধর্মাবলম্বীকে কারির সঙ্গে গরুর মাংস মিশিয়ে খাওয়ানোর ঘটনা ফেসবুকে ভাইরাল

শনিবার (২২ মে) সকালে বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই তরুণী বা তার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।
এর আগে শুক্রবার (২১ মে) ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।
এ ঘটনায় বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোট, বগুড়া জেলা ও পৌর পূজা উদযাপন পরিষদ নিন্দা জানিয়েছে।
জানা যায়, বগুড়া শহরের নবাববাড়ি সড়কে ব্যবসায়ী সাইরুল ইসলামের মালিকানাধীন আধুনিক বিপণিবিতান রানার প্লাজা। সেখানে সম্পাস ডাইন নামে একটি চাইনিজ রেস্তোরাঁয় এ ঘটনা ঘটে।
বৃহস্পতিবার (১৯) বিকেলে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার সনাতন ধর্মাবলম্বী এক তরুণী বন্ধুদের সঙ্গে ওই রেস্তোরাঁয় খেতে আসেন। তিনি ওয়েটার আনন্দীকে ফ্রাইড রাইস ও চিংড়ি কারির অর্ডার করেন।
খাওয়ার সময় হিন্দু তরুণী দেখতে পান চিংড়ির সঙ্গে গরুর মাংস মেশানো হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে ওই তরুণী প্রতিবাদ করেন এবং বমি করে ফেলেন।
এ ঘটনা নিয়ে ভাইরাল এক ভিডিওতে দেখা যায়, ওই তরুণী কান্নাকাটি করছেন, তিনি সম্পাস ডাইন এর কর্তৃপক্ষের কাছে তাকে গরুর মাংস খাওয়ানের প্রতিবাদ করেন। তিনি এ ব্যাপারে কৈফিয়ত চান। তখন রেস্তোরাঁর লোকজন বলেন, তারা জানতেন না তিনি (তরুণী) হিন্দু। তারা এ ঘটনায় সঠিক উত্তর দিতে ব্যর্থ হন এবং তরুণীকে শান্ত করার চেষ্টা করেন।
বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোটের সভাপতি প্রদীপ কান্তি দে, সাধারণ সম্পাদক রাজেশ নাহা ও সাংগঠনিক সম্পাদক সেকেন নাহা এক বিবৃতিতে জানান, তাদের বোন একজন অনলাইন ব্যবসায়ী। তিনি বৃহস্পতিবার বিকেলে বগুড়ায় সম্পাস ডাইনে এসে ফ্রাইড রাইস ও চিংড়ি কারি অর্ডার করেন। কিন্তু ওয়েটার তাকে চিংড়ির সঙ্গে গরুর মাংস দেন। হিন্দু মহাজোটের নেতারা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান।
বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, এ ঘটনায় সম্পাস ডাইনের ওয়েটার আনন্দীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। এছাড়া ওই তরুণীকেও ডাকা হয়। ওই তরুণী বা তার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি।