কাহালুর অসুস্থ্য ত্যাগি নেতা ছাত্তারের বাড়িতে আওয়ামী লীগ নেতা দুলু

তৃনমূল পর্যায়ে অনেক নেতাই যারা বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে দলের জন্য হরদম ছুটে বেড়ায় এক স্থান হতে অন্য স্থানে কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য। যাদের মনে প্রানে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তাঁরই উত্তরসূরী মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক দর্শনকে বাস্তবায়ন করার স্বপ্ন। এমন এক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব কাহালু উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ সদস্য জয়তুন গ্রামের আব্দুস সাত্তার (৬৫) যার জেলা পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহন ছিল চোখে পড়ার মত। গতকাল রোববার অসুস্থ্য ও অসহায় এ ত্যাগি নেতাকে দেখতে যান বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের-১ম প্যানেল চেয়ারম্যান একেএম আসাদুর রহমান দুলু।

এসময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন এক মানব দরদী ও উদার মানসিকতা সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব। তিনি তাঁর রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের সাথে ভালো আচরণ ও বিপদে-আপদে সকলের পাশে দাঁড়াতেন। ঠিক বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা নেতাকর্মীদের সব সময় খোঁজ-খবর নেয়াসহ দেশের যেকোন অসহায় মানুষের সংকট মোকাবেলায় পাশে দাঁড়ান। এ শিখনগুলো তখনই বাস্তব রুপ নেবে যখন তৃনমূল পর্যায়ের যেকোন নেতাকর্মীদের পাশে আমরা দাঁড়াতে পারবো। একজন অসুস্থ্য মানুষের অসুস্থ্য থাকাকালীন সময় নানা দুঃখ, স্মৃতি ও অতীত দানাবাঁধে হৃদয়ে। এ হৃদয় তখনই প্রশান্তি পায় পূর্বে যাদের সাথে পথচলা ছিল তারা যদি ছুটে আসে এক নজর দেখার জন্য।

এ অনুভূতি থেকে আসাদুর রহমান দুলু জানতে পেরে ছুটে যান কাহালুর নিভৃত পল্লী জয়তন গ্রামে। তাকে দেখে আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন অসুস্থ্য সাত্তার। তার শরীরিক অবস্থা ও পারিবারিক খোঁজ-খবর নেন এ নেতা। সেই সাথে চিকিৎসার আর্থিক সহযোগিতার পাশাপাশি যে কোন সমস্যায় পাশে দাঁড়াবেন এমন আশ্বস্ত করেন। এসময় তার সাথে ছিলেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মাশরাফি হিরো, সদস্য আলমগীর হোসেন স্বপন, গাবতলী উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা নিকুঞ্জ কুমার পাল, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আরিফুল আলম শাওন, শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মোতাহার হোসেন মিজু, জেলা ছাত্রলীগ নেতা স্বাধীন মিয়া, সাব্বির হোসেন, আকাশ, নাঈম প্রমুখ।

 

সর্বশেষ সংবাদ