ফ্রি ফায়ার গেম খেলতে না দেওয়ায় বগুড়ায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টার:বগুড়ায় ফ্রি-ফায়ার অনলাইন গেম খেলতে না দেওয়ায় হাবিবা বর্ষা (১২) নামে এক স্কুলছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। শাজাহানপুর উপজেলার বি-ব্লক রহিমাবাদ গ্রামে একটি ভাড়া বাসায় সোমবার দিবাগত রাতে কোন এক সময় এ ঘটনা ঘটে। আত্মহননকারী বর্ষা সারিয়াকান্দি উপজেলার রামকৃঞ্চপুর গ্রামের সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট রওশন হাবিবের মেয়ে ও বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। তারা বাবা সেনাবাহিনীর চাকরির সুবাধে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এ কর্মরত রয়েছেন। এখানে সে তার মা ও বোনের সাথে ওই ভাড়া বাসায় থাকতো। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল ও মিডিয়া) ফয়সাল মাহমুদ। খবর পেয়ে তিনি মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।পুলিশ জানায়, সোমবার দিবাগত রাতে কোন এক সময় সে নিজের শোবার ঘড়ে ফ্যানে নিজের ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দেয় । পরে মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে তার মা ডাকতে গিয়ে দরজা বন্ধ দেখতে পান। অনেক ডাকাডাকির পরও দরজা না খোলায় আশপাশের লোকজন এসে প্রথমে জানালা ভেঙে বর্ষার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়। পরে শাহাজাহানপুর থানা পুলিশ যেয়ে লাশটি উদ্ধার করেছে।পুলিশ আরও জানায়, লাশ উদ্ধারের সময় বর্ষায় কাছ থেকে একটি চিরকুট পাওয়া যায়। যাতে লেখা ছিল, ‘বাবা-মা আমাকে ফ্রিফায়ার গেম খেলতে দিত না। বকাঝকা করত। তাই আমি চলে গেলাম। আমাকে আর বকাঝকা করতে হবে না।’শাজাহানপুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, আমরা মেয়েটির লাশের সাথে একটি চিরকুট পেয়েছি। মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ স্বজনদের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে ও সেই সাথে কারও অভিযোগ না থাকায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের হবে।