জীবন শংকায় ঝিনাইদহের নলডাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির বিশ্বাস

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ-ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ কবির হোসেন বিশ্বাসের পিছু ছাড়ছে না কিলার গ্রুপ। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর ৫ বছরে চার বার হামলা করা হয় হত্যার উদ্দেশ্যে। প্রতিবারই তিনি কাকতালীয় ভাবে বেঁচে যান। সর্বশেষ গত শুক্রবার (২১ মে) তার উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়। এই ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ঝিনাইদহ সদর থানায় তিনি জিডি করেছেন। জিডি সূত্রে জানা গেছে, গত ২১ মে চেয়ারম্যান কবির হোসেন নলডাঙ্গা ইউনিয়নের ভিটশ্বর গ্রামের একটি শালিশ শেষে মোটরসাইকেলযোগে ইউনিয়ন পরিষদে ফিরছিলেন। সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ভীটশ্বর গ্রামের সত্যেন ডাক্তারের বাড়ির কাছে পৌছালে বাগুটিয়া গ্রামের মৃত বজলু বিশ্বাসের ছেলে চান্দালী (৪৮), মৃত বাবর আলীর ছেলে তরিকুল ইসলাম (৩৫), সাইদুল খোড়ার ছেলে লিমন (৩২), মৃত রুহুল বিশ্বাসের ছেলে রিংকু (২৭), মৃত বাবর আলীর ছেলে আলাউদ্দিন (৪২), ছাত্তার জোয়ার্দারের ছেলে মিজান (৪৪) চাপাতি ও রামদা, চাকুসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তার উপর হামলা চালায়। এসময় চেয়ারম্যানের সঙ্গে থাকা আড়মুখ গ্রামের মৃত ইউসুফ বিশ্বাসের ছেলে নূর আলী (২৪) কে তারা এলোপাথাড়ী ভাবে পিটিয়ে জখম করে। এ ঘটনায় পুলিশ বেশ ক’জনকে আটক ও রামদা উদ্ধার করেছে। চেয়ারম্যান কবির হোসেন জানান, চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ঝিনাইদহের একজন এমপির ইন্ধনে বারবার তার উপর হামলা ও হত্যার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ঝিনাইদহ পুলিশ লাইসন এর সামনে একবার কুষ্টিয়ার কিলার গ্রুপকে ভাড়া করে হত্যার ছক কষে প্রভাবশালী মহলটি। নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ ও বাজারেও একাধিকবার তার উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়। কিন্তু কোন প্রতিকার নেই। ফলে জীবন নিয়ে আমি শংকায় আছি। ঠিকমত সরকারী দায়িত্ব পালন করতেও পারছি না। বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, নলডাঙ্গার চেয়ারম্যান কবির হোসেনের উপর হামলার ঘটনায় মোট ৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে সাইদ নামে এক আসামী স্বীকার করেছে লিমন তাদের ৬ জনকে ভাড়া করে এনেছে। আসামীর স্বীকারোক্তি যাচাই বাছাই করা হচ্ছে বলে ওসি জানান।

সর্বশেষ সংবাদ