বগুড়ায় ব্রেড-বিস্কুট এন্ড কনফেকশনারী মালিক সমিতির মানববন্ধন

শিল্প অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে দেশকে এগিয়ে নিতে পারে। বিশ্বের যে কোন উন্নত দেশের দিকে তাকালে দেখা যায়, যে দেশের শিল্প সমৃদ্ধশালী সে দেশ অনেক উন্নত। আমাদের দেশে সব ধরণের শিল্প সচল থাকায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বর্তমানে ক্ষুদ্র ও কুঠির শিল্পের আওতায় খাদ্য পণ্য প্রতিষ্ঠান ব্রেড-বিস্কুট এন্ড কনফেকশনারী উৎপাদনে ব্যবহত পণ্য তেল, চিনি, ডালডাসহ সব কিছুর মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় হুমকির মুখে পড়েছে এ শিল্প। মালিক ও শ্রমিকরা হয়েছে দিশেহারা। নেই সরকারি সহযোগিতা, নেই শ্রমিকদের প্রণোদনা। মালিকরা চড়া দামে পণ্য তৈরি করে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। কয়েক লক্ষ শিল্পে লক্ষ লক্ষ মানুষের বেকারত্ব মোচনে মাইল ফলক হিসেবে কাজ করার পরও ঋণের দায়ে জর্জরিত হচ্ছে মালিকগণ। কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে ব্যবসায় মন্দা ভাব। অন্য দিকে সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী অনেকগুলো লাইন্সেস নবায়ন ও সরকারি কোষাগারে আয়কর ও ভ্যাট পূর্বের ন্যায় প্রদান করা মরার উপর খাড়ার ঘা এর সামিল। এ শিল্পকে ধ্বংসের খাত হতে বাঁচাতে সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের পাশাপাশি আধুনিকায়ন করতে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন।
বৃহস্পতিবার সকালে শহরের সাতমাথায় বগুড়া ব্রেড-বিস্কুট এন্ড কনফেকশনারী মালিত সমিতির আয়োজনে মালিক-শ্রমিক ঐক্যবদ্ধ মানববন্ধনে এ কথাগুলো বলেন সংগঠনের সভাপতি মো. হাসান আলী আলাল।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এ্যাভোকেট ইমদাদুল হক ইমদাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ, রেজাউল করিম, মিরাজ, সাইদুর রহমান, মোহাম্মদ আলী, শাহ আলম, আব্দুর রহিম, মিজানুর রহমান, বিপ্লব শেখ, রাজ্জাক, জুলফিকার আলী, জাফরুল ইসলাম, মুকুল হোসেন, শামীম, জুয়েল, আমির সাজ্জাদ, তানভির আহম্মেদ প্রমুখ।
উক্ত মানববন্ধনে মালিক-শ্রমিক ঐক্যগড় বাজার সিন্ডিকেট ভেঙ্গে ফেলো, শিল্প মালিকদের প্রনোদনা দাও দক্ষ শ্রমিকদের বাঁচাও, শেখ হাসিনার অঙ্গিকার শিল্প-কারখানা রক্ষায় এগিয়ে আসা, পাগলা ঘোড়ার ন্যায় দফায় দফায় তেল, চিনি, ডালডার দাম বৃদ্ধি অর্ধেকের নিচে আনতে হবে, টিসিবির মাধ্যমে বেকারী মালিকদের ন্যায্য মূল্যে চিনি, তেল ও ডালডা দিতে হবে এ শ্লোগানগুলো স্থান পায় প্লেকার্ডে।
মানববন্ধন শেষে একটি মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।