বগুড়ার গাবতলীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

(৯ জুন) বুধবার বিকাল সাড়ে চারটায় বগুড়া জেলার গাবতলী উপজেলার বালিয়াদিঘী ইউনিয়নে সরকারি আপনিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে এলাকার ভূমিদস্যু।
উপজেলায় প্রশাসনিকভাবে বালু উত্তোলনের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও নিষেধাজ্ঞা অবজ্ঞা করে দেদারছে অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে এলাকার প্রভাবশালী বালু ব্যবসায়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউনুস ফকির।
স্থানীয় পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গাবতলী উপজেলার বালিয়াদীঘি ইউনিয়নের কালাইহাটা  গ্রামের পৃর্ব পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ইছামতি নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে নদীর পাড়ের আবাদি জমির দীর্ঘদিন বালু উত্তোলনের ফলে ক্ষতি হচ্ছে নদীর, ফলে বাড়ছে নদীর ভাঙ্গন, হুমকির মুখে আবাদি জমি।
এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক ব্যক্তির সাথে কথা বললে তারা জানান, নদীর ভাঙ্গন ও নদীর নাব্যতা রক্ষার্থে আমরা ও গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদ করতে গেল আমাদের কথা শোনেনি প্রভাবশালী বালু ব্যবসায়ীরা, উল্টো আমাদের কে নানানভাবে ভয় ভীতি দেখায় ভূমিদস্যু সহ তার সহযোগীরা।
বালু উত্তোলনের বিষয়ে বালিয়াদিঘী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মাহাবুবর রহমানের সাথে কথা হলে অবৈধ বালু উত্তোলনের বিষয়ে তিনি অবগত নন বলে জানান।
এদিকে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা রওনক জাহান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সালমা আক্তারকে জানালে, ওনারা  বালু উত্তোলনের স্পটে উপস্থিত হয়ে ড্রেজারমেশিন ও উত্তোলিত বালু স্পট নিলাম করে  ৬৯ হাজার ৬০০ টাকা আদায় করে সরকারি কোষাগারে জমা করেন।