বগুড়ায় অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে পুলিশের জালে এক যুবক গ্রেফতার

সঞ্জু রায়, স্টাফ রিপোর্টার: বগুড়ায় অপহরণের পর হত্যার হুমকি দিয়ে ১ লক্ষ টাকা মুক্তিপনের অভিযোগে পুলিশ একাধিক মামলার আসামী পেশাদার অপহরণকারি  মিথুন খান (৩২) নামে এক অপহরণকারিকে গ্রেফতার করেছ। পুলিশ জানায়, মিথুন বগুড়া শহরের চকনাটাইপাড়ার মৃত নেহাল খানের ছেলে।
এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদি হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে আরও অজ্ঞাতনামা ৪ জনকে আসামী করে বগুড়া সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ জানায়, বগুড়ার  ধুনটের বিলচাপড়ী গ্রামের আব্দুল হালিমের ছেলে করতোয়া অফিসের শ্রমিক বদিউজ্জামান (২৫) গত ৬ জুলাই দুপুরে বগুড়া শহরতলীর পুরানবগুড়া তিন মাথা রেল ঘুমটি এলাকায় আসে। এসময় এক মহিলা প্রেমের প্রলোভন দিয়ে তাকে  রিক্সায় তুলে গোপন স্থানে নিয়ে আটক রেখে ওই মহিলা ও  মিথুন খানসহ ৭/৮ জন অপহরণকারি ভিকটিম বদিউজ্জামানের নিকট  ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না পেয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে তাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় মারপিট করতে থাকে। এক পর্যায়ে অপহরণকারিরা বদিউজ্জামানের বড় ভাই শাজাহান’র  নিকট বিকাশের মাধ্যমে ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। বিষয়টি  বদিউজ্জামানের পিতা বগুড়া সদর থানায় অবহিত করে। পরে বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফয়সাল মাহমুদের পরিকল্পনায় ও  নির্দেশে এস.আই সোহেল রানা সাদা পোষাকে গত ৬ জুলাই দিবাগত গভীর রাতে  সঙ্গীয় ফোর্সসহ শহরের জামিলনগর এলাকায় অভিযান চালিয়ে মিথুন খানকে গ্রেফতার করে যদিও অন্যরা কৌশলে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ভিকটিম বদিউজ্জানকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফয়সাল মাহমুদ জানান, গ্রেফতার হওয়া মিথুন পেশাদার অপরাধী, তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। ভিকটিম ব্যক্তির পরিবারটি অসহায় অবস্থাতেও সঠিক সময়ে তাদের কাছে এসেছিল সহায়তার জন্যে তাই দ্রুততম সময়ে তথ্য প্রযুক্তির সহযোগিতায় ভিকটিম কে উদ্ধারসহ আসামীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। উক্ত ঘটনায় জড়িত বাকি আসামীদের গ্রেফতারেও অভিযান চলমান রয়েছে। তিনি আরো জানান, সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিতে পুলিশ সর্বদা জিরো টলারেন্স তাই অপরাধীদের দিনশেষে কেউ আইনের হাত থেকে শেষরক্ষা পাবেনা মর্মে হুশিয়ারি দেন তিনি।