চীনে ফের করোনার হানা, বাস-ট্রেন বন্ধ

গোটা বিশ্বকে কাঁপন ধরিয়ে দেয়া করোনার উৎপত্তিস্থল হিসেবে বিবেচনা করা হয় চীনের উহানকে। তবে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ছড়ানো এই ভাইরাসটি ২০২০ সালের শুরুতে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় দেশটি। ফলে অল্প সময়ের মধ্যেই বেইজিং স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে পারলেও বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ এই মহামারিতে ভুগছে। করোনাভাইরাসের সবচেয়ে সংক্রামক ধরণ ও দ্রুত সময়ে ছড়ানো ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট বা ভারতীয় ধরন এবার ছড়িয়েছে চীনে। দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে, নতুন করে ৪৬ জনের দেহে সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ২০ জন স্থানীয়ভাবে এবং বাকি ২৬ জন বিদেশ থেকে আসা ব্যক্তিদের মাধ্যমে আক্রান্ত হয়েছেন। চীনা গণমাধ্যম বলছে, ওই ২০ জনের ১৯ জনই দক্ষিণাঞ্চলীয় ফুজিয়ান প্রদেশের পুতিয়ান জেলার বাসিন্দা। বাকি একজন পার্শ্ববর্তী কুয়ানঝু জেলায় বসবাস করেন। এ ছাড়া ২৬ জনের সবাই রাশিয়া ও মিয়ানমার থেকে আসা ভ্রমণকারীদের সংস্পর্শে ছিলেন। নতুন করে করোনার হানার ঘটনায় এখন পর্যন্ত কারো মৃত্যুর খবর পাওয়া না গেলেও বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছে ফুজিয়ান কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে সেখানকার বাস, ট্রেন, সিনেমা হল ও মদের বার বন্ধ করার পাশাপাশি সতর্ক থাকার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। চলমান মহামারিতে চীনে এখন পর্যন্ত ৯৫ হাজার ১৯৯ আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৩৬ জন। ওয়ার্ল্ডোমিটার বলছে, সারা বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৪৬ লাখ ৪০ হাজার ৬৮৯ জনের বেশি। এর মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৬ লাখ ৭৭ হাজার ৭৩৭ জন এবং ভারতে ৪ লাখ ৪২ হাজার ৬৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।