গাইবান্ধায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যানসহ আটজনের আমৃত্যু কারাদন্ড

আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে চাঞ্চল্যকর কৃষক হাসান আলী হত্যা মামলায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা মাওলানা নজরুল ইসলাম লেবুসহ আটজনের আমৃত্যু কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়া দন্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেকের এক লাখ টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদন্ড দেয়া হয়। অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার আট আসামিকে খালাস দেওয়া হয়।
বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলিপ কুমার ভৌমিক এ রায় দেন। রায় ঘোষণার সময় ১৬ আসামির মধ্যে ১৩ জন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাকি তিনজন পলাতক।
আমৃত্যু কারাদন্ড প্রাপ্তরা হলেন পলাশবাড়ীর সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা জামায়াতের সাবেক আমির মাওলানা নজরুল ইসলাম লেবু, আব্দুর রউফ, জালাল, গোলাম মোস্তফা, সোনালী ব্যাংক কর্মচারী শাহ আলম, মিজানুর রহমান, আবু তালেব এবং রংপুরের পীরগঞ্জের ফারুক। এর মধ্যে মিজানুর ও আবু তালেব পলাতক। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফারুক আহমেদ প্রিন্স রায়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
ফারুক আহমেদ জানান, ১৯৯৯ সালের আগস্ট মাসে পলাশবাড়ির আমবাড়ি গ্রামে একটি কলেজের কমিটিকে কেন্দ্র করে অধ্যক্ষ আব্দুর রউফের সঙ্গে নজরুল ইসলাম লেবুর শত্রুতা শুরু হয়। পরবর্তীতে লেবুর নেতৃত্বে তার লোকজন আব্দুর রউফের ওপর হামলা করে। এ সময় পাশের গ্রামের হাসান আলী নামে এক কৃষক রউফকে বাঁচাতে গিয়ে মারপিটের স্বীকার হয়ে গুরুতর আহত হয়। পরদিন বগুড়ার জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ঘটনার পরদিন নিহতের বড় ভাই আবুল কাশেম বাদী হয়ে দশজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১০/১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।
মামলাটির দীর্ঘ শুনানি শেষে ১৬ আসামির মধ্যে ১৩ আসামির উপস্থিতিতে আজ রায় ঘোষণা করা হয়। আসামিপক্ষের আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম বাবু বলেন, ‘মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট নই। আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করব। সেখানে ন্যায়বিচার পাবো বলে আশা করছি।’