দুপচাঁচিয়ায় শীতের শুরুতেই লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

দুপচাঁচিয়া(বগুড়া) প্রতিনিধিঃবগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় শীতের শুরুতেই লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। শীতের মৌসুম এলেই লেপ ভারোর চিত্র ধরা দেয় গ্রাম বাঙলার দোকানগুলোতে। সারা বছর কম বেশী তোষকের চাহিদা থাকলেও শীতকালে লেপের চাহিদা অনেক বেশি থাকে। কেউ পুরানো লেপ তোষক ঠিক করার জন্য অর্ডার দিচ্ছেন কেউ বা নতুন করে লেপ তোষক তৈরি করে নিচ্ছেন। কেউ নিজের পরিবারের জন্য আবার কেউ নতুন জামাই বাড়িতে লেপ তোষক পাঠাতে। এ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। কাজের ব্যস্ততার পাশাপাশি শীত মৌসুমে আয়ও বেড়ে যায় কারিগরদের। অধীর আগ্রহ নিয়ে বছরের এই সময়ের জন্য অপেক্ষা করে থাকেন কারিগররা। বছরের অন্যান্য সময় প্রতিদিন এক থেকে দু’টি লেপ তোষক অর্ডার থাকে। কিন্তু শীত মৌসুতে ৭/৮টি অর্ডার থাকে। এদিকে গ্রামের নারীও বসে নেই। পরিবারের কাজের ফাঁকে পুরানো কাপড়ের পাশাপাশি ছেড়া জামা-কাপড়, লুঙ্গি-শাড়ি দিয়ে তৈরি করছেন নতুন কাথা।
কারিগর আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, আমি ৬বছর ধরে এ কাজ করছি। একটি লেপ তৈরি করে দিয়ে পারিশ্রমিক হিসাবে পাই ১২০টাকা। কিন্তু শীতের সময় আয় বাড়ে। যা দিয়ে আমাদের সংসার ভালোভাবে চলে যায়।
লেপ তোষক ব্যবসায়ী সেলিম শেখ জানান, এ ব্যবসা আমাদের পূর্ব পুষরাও করে গেছেন। আমি প্রায় ৩০বছর ধরে এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। সারা বছর কম আয় হলেও শীতের সময় আমাদের আয় ভালো হয়। তিনি জানান, কাপড় ও সুতার দাম বেশি হওয়ায় লেপ ও তোষক তৈরি করতে খরচ এখন অনেক বেশি হয়। ভালো মানের লেপ ১হাজার ৫’শ থেকে ২হাজার ৫’শ পর্যন্ত বেচা-কেনা হয়। মাঝারী মানের লেপ ৮’শ থেকে ১হাজার টাকা, ছোট আকারের লেপ ৫’শ থেকে ৭’শ টাকা বেচা-কেনা হয়। একটি বড় লেপ তৈরি করতে ৩/৪ঘণ্টা সময় লাগে কারিগরদের।