সৌদিতে অস্ত্র বিক্রি আটকাতে সরব ৩ সিনেটর

সৌদি আরবের কাছে মার্কিন অস্ত্র বিক্রির বিরোধিতায় নেমেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী তিন সিনেটর। সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের বিমান হামলায় ইয়েমেনে মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে। এর মধ্যেই মধ্যপ্রাচ্যের মিত্রের কাছে বড় ধরনের অস্ত্র বিক্রি করতে যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। রিয়াদের কাছে অস্ত্র বিক্রি আটকাতে একটি যৌথ প্রস্তাব দিয়েছেন রিপাবলিকান সিনেটর র‌্যান্ড পল, মাইক লি ও ডেমোক্র্যাটিক বার্নি স্যান্ডার্স। মার্কিন আইনপ্রণেতাদের অনেকেই মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ মিত্র হিসেবে বিবেচনা করছেন সৌদিকে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ৬৫ কোটি মার্কিন ডলারের ২৮০টি আকাশ থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র বিক্রি করা হবে উপসাগরীয় দেশটির কাছে। সৌদিতে বিক্রি হতে যাওয়া নতুন অস্ত্রের প্যাকেজের মধ্যে রয়েছে, ২৮০টি এআইএম-১২০সি-সেভেন/সি-৮ অত্যাধুনিক মাঝারি-পাল্লার আকাশ থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র (এএমআরএএএম), ৫৯৬টি এলএইউ-১২৮ মিসাইল রেইল লাঞ্চার (এমআরএল)। এছাড়া এ সংক্রান্ত বিভিন্ন যন্ত্রপাতিও রয়েছে। ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি আরবের যুদ্ধাপরাধের ভূমিকা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে সমালোচনাও একেবারে কম না। বেমামরিক নাগরিকদের হত্যায় মার্কিন অস্ত্র ব্যবহার হবে না বলে নিশ্চয়তা না পেলে সৌদির কাছে সামরিক অস্ত্র বিক্রির বিরোধিতা করছেন মার্কিন আইনপ্রণেতারা। সমালোচকেরা বলছেন, ইয়েমেনে রিয়াদের নেতৃত্বাধীন জোট ও হুতি বিদ্রোহীদের সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধের তদন্ত করা জাতিসংঘের গবেষকদের সময়সীমা বাড়ানোর বিরুদ্ধে সৌদি আরব উচ্চ-পর্যায়ের তদবিরে নেমেছে। এক বিবৃতিতে র‌্যান্ড পল বলেন, সৌদির কাছে নতুন করে মার্কিন অস্ত্র বিক্রি মধ্যপ্রাচ্যকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দেবে। এতে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক প্রযুক্তিও ঝুঁকিতে পড়ে যেতে পারে। ইয়েমেনে সৌদি আরব তার বিপর্যয়কর যুদ্ধ অব্যাহত রেখেছে। এছাড়াও সৌদির নাগরিকদের ওপরও দমনপীড়ন চালানো হচ্ছে। কাজেই আরও অস্ত্র সরবরাহ করে তাদের পুরস্কৃত করার কোনো মানে হয় না। কিন্তু বাইডেন প্রশাসন বলছে, উপসাগরীয় মিত্রের কাছে তারা কেবল আত্মরক্ষামূলক অস্ত্র বিক্রি করছেন। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ইয়েমেন সংঘাতের অবসান ঘটিয়ে গণতন্ত্রের পথকে এগিয়ে নিতে বাইডেন প্রশাসনের প্রতিশ্রুতির সঙ্গে এই অস্ত্র বিক্রি সামঞ্জস্যপূর্ণ। ইয়েমেনের ইরানঘেঁষা হুতি বিদ্রোহীদের হামলার বিরুদ্ধে সৌদি আরবের আত্মরক্ষার জন্য তাদের আকাশ থেকে আকাশে হামলার ক্ষেপণাস্ত্র দেওয়া হচ্ছে।