শীতার্তদের সহযোগিতায় সকলকে এগিয়ে আসতে হবে-বগুড়া জেলা প্রশাসক

স্টাফ রিপোর্টার: বগুড়া জেলা প্রশাসক মো: জিয়াউল হক বলেছেন, সরকারের পাশাপাশি শীতার্তদের সহযোগিতায় সকলকেই মানবিকভাবে এগিয়ে আসতে হবে। বগুড়ায় সকল মানবিক উদ্যোগে তরুণ ও যুব সমাজ সর্বদা এগিয়ে থাকে যা সারাদেশে দৃষ্টান্তমূলক। তারুণ্যের এই শক্তিতেই সকলের সন্মিলিত প্রচেষ্টাতে একে অপরের সুখ দু:খ ভাগাভাগি করার মধ্য দিয়ে এই সোনার বাংলাদেশ সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে।
২০২১ সালের এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ভাল ফলাফলের প্রত্যাশায় অনলাইন পোর্টাল বগুড়া লাইভ এর উদ্যোগে বুধবার দুপুরে পোর্টালের উপদেষ্টা সম্পাদক ও বিজয় টিভির বগুড়া জেলা প্রতিনিধি তানজিজুল ইসলাম স্বরণের সভাপতিত্বে শহরের টিএমএসএস অটিজম ও প্রতিবন্ধী স্কুলের আবাসিক শিক্ষার্থী এবং মাসুদা প্রবীণ নিবাসের বাসিন্দাদের মাঝে উষ্ণতার পরশ হিসেবে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপোরোক্ত কথাগুলি বলেন।
অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক আরো বলেন, শীত উপলক্ষে বগুড়াতে সর্বপ্রথম বগুড়া লাইভ পরিবার মানবতার টানে বিনাস্বার্থে যেভাবে প্রবীণ ও প্রতিবন্ধীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়। দৈনিক চাঁদনী বাজার পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার সঞ্জু রায়ের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (গোপনীয়) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট আশরাফুর রহমান, টিএমএসএস রিলিজিয়াস কমপ্লেক্স এর চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান, টিএমএসএস এর উপদেষ্টা আয়েশা বেগম, সংস্থার উপ-নির্বাহী পরিচালক সোহবার হোসেন খান, ফুলবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর সুজন মিঞা এবং বিডি ক্লিন বগুড়া’র জেলা সমন্বয়ক মাহবুব আলম জিয়ন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন টিএমএসএস অটিজম ও প্রতিবন্ধী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) যুবায়ের পিনু, বগুড়া লাইভের বার্তা সম্পাদক সেলিম আহম্মেদ ইফতি, হেড অফ আইটি শাওন আল ফারুক, শেখ তানিয়া, সমুদ্র, তুবা, কৌশিক, আবিদসহ বগুড়া লাইভের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়া শাখা সংগঠন নব্যদীপ্তি’র সদস্যরা। অনুষ্ঠানে প্রবীণ নিবাসের বাসিন্দা ও প্রতিবন্ধী স্কুলের শতাধিক শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র হিসেবে সম্পূর্ণ উলের সুতা দিয়ে তৈরি কম্বল, মাথার টুপি, হাত ও পায়ের মোজা এবং গায়ের চাদর বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে বগুড়া লাইভের উদ্যোগে প্রতি বছর বিভিন্ন সময় নেয়া মানবিক কার্যক্রমের এই ইতিবাচক ধারা ভবিষ্যতেও অব্যাহত রাখার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন সংশ্লিষ্টরা।