বগুড়া প্রেসক্লাবে ধুনটের চিকাশী ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী শিপনের সাংবাদিক সম্মেলন

প্রিয় সাংবাদিক বৃন্দ-আসসালামুআলাইকুম। ২০১৬ সালে বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলার ৩নং চিকাশী ইউনিয়নের নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে বিপুল ভোটে জনগন আমাকে নির্বাচিত করেছিল। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই অদ্যবধি মানুষের কল্যানে কাজ করছি, তারই ধারাবাহিকতায় জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে পুনরায় নৌকার প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রদান করেছেন। নৌকার সুনিশ্চিত বিজয় জেনে ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতিসহ প্রভাবশালী মহল চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। তারা নৌকার বিজয় ঠেকাতে উঠেপড়ে লেগেছে।
প্রিয় কলম সৈনিকবৃন্দ
আসছে ২৮ নভেম্বর ইউপি নির্বাচনে চিকাশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলেফ বাদশা মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। তিনি মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে একের পর এক চক্রান্ত করছেন। তার জামাই আরিফুর রহমানকে (ঘোড়া প্রতিক) স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দাঁড় করিয়ে দিয়ে তার পক্ষে আলেফ বাদশা কাজ করছেন। নৌকার বিজয় ঠেকাতে তিনি নানা অপপ্রচার, মিথ্যাচার, নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষকে ভয়ভীতি দেখানো ও বিভ্রান্তি ছাড়াচ্ছেন। মনোনয়ন পাওয়ার পর থেকে তাকে নৌকার পক্ষে কাজ করার জন্য বার বার অনুরোধ করা স্বত্তেও তিনি নৌকা বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। তার এসব কর্মকান্ডে ইউনিয়ন আ’লীগ থেকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দের নিকট গত ১৬ই নভেম্বর দলীয় শৃংঙ্খলা ভঙ্গের একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়। গত ২০ নভেম্বর উপজেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উক্ত অভিযোগটি গ্রহণ করেন। কিন্তু আজও পর্যন্ত তাঁর বিরুদ্ধে কোন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এ কারনে তিনি আরো বেপরোয়া হয়ে নৌকার বিজয় ঠেকাতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছেন। তাঁর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন করায় বুধবার সন্ধ্যায় জোড়শিমুল গ্রামে নৌকার সভায় তিনি তার জামাই এর প্রতীক ঘোড়া মার্কার ষ্টিকার লাগনো মোটরসাইকেল নিয়ে উপস্থিত হয়ে হট্টগোল সৃষ্টি করেন। আলেফ বাদশা মদ্যপ অবস্থায় সভামঞ্চে উঠার চেষ্টা করায় তাকে সভা থেকে চলে যাওয়ার আহ্বান জানানো হলে তিনি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন। আলেফ বাদশা গোপনে তার জামাইয়ের ভোট প্রচারনা করছেন আর নেতাকর্মীদের দেখানোর জন্য শেষ মুহুর্তে সভায় এসে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ঘোলাটে করার অপচেষ্টা করছেন। তিনি বিভিন্নভাবে দলীয় সমর্থক নেতাকর্মীদের হুমকি ধামকি প্রদান করছেন। যেহেতু তিনি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি এবং স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী এ কারনে ভোটের দিনে তার জামাইকে বিজয়ী করতে বিশৃঙ্খলা নির্বাচনের পরিবেশ বিনষ্ট করার অপচেষ্টা করছেন। শুধু তাই নয় আলেফ বাদশার বাড়ি থেকে তার জামায়ের পক্ষে ঘোড়া প্রতীকে নির্বাচনি প্রচার প্রচারনা সহ সকল ধরণের আর্থিক লেনদেন করা হচ্ছে। তাই তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া খুবই জরুরী।
প্রিয় সাংবাদিক বৃন্দ
চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে অদ্যবধি জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়নে কাজ করছি। জনগনের দেয়া দায়িত্ব আমি সুষ্ঠভাবে পালন করে আসছি। সর্বদা এলাকার মানুষের সুখে দুখে পাশে রয়েছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের সুফল মানুষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে কাজ করছি। এতে করে সাধারণ মানুষের কাছে আমার গ্রহণযোগ্যতা বিগত সময়ের চেয়ে আরো বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান কাজলসহ নেতাকর্মীরা নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে দিন রাত পরিশ্রম করছেন। সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিতে ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আলেফ বাদশা গোপনে ও প্রকাশ্যে নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করছেন। তাই তার বিরুদ্ধে দ্রুত সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করার আহ্বান জানাচ্ছি। একই সাথে চিকাশী ইউনিয়নে ২৮ নভেম্বর শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহনে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ নেয়ার জন্য প্রশাসনের প্রতি বিনিত অনুরোধ জানাচ্ছি।