কাকিনা জমিদারদের শেষ নিদর্শন ত্রিতল হাওয়াখানা

শাফায়াত সজল, লালমনিরহাট থেকে ফিরেঃ বৃহত্তর রংপুর জেলার অন্যতম জমিদারী ছিল কাকিনার জমিদার। ১৬৮৭ খ্রিস্টাব্দে মোগলদের দেয়া সনদমূলে কাকিনার জমিদারির সূচনা হয়। সে সময় ঘোড়াঘাটের মোগল ফৌজদার এবাদত খাঁ কোচ রাজা মহিন্দ্র নারায়নের সঙ্গে এক যুদ্ধে কোচ রাজ্যের ৬টি পরগনার মধ্যে কাকিনা, ফতেপুর ও কাজিরহাট দখল করে নেয়। ওই সময় দিল্লীতে মোগল সম্রাট ছিলেন আওরঙ্গজেব ও বাংলার সুবেদার ছিলেন তাঁর মামা শায়েস্তা খাঁ এবং ঘোড়াঘাটের ফৌজদার ছিলেন শায়েস্তা খাঁর ছেলে এবাদত খাঁ।
এবাদত খাঁ পরগনা দখলের পর কোচবিহারের নাজির শম্ভু নারায়নকে কর নির্ধারণ পূর্বক এর জমিদারির বন্দোবস্ত করতে অসম্মত হলে কাকিনা পরগনার প্রভাবশালী কর্মচারী রঘু রামের চার পুত্রের মধ্যে রামনারায়নকে কাকিনা জমিদারি সনদ প্রদান করেন। পরবর্তীতে রাজা রায় চৌধুরী জমিদারী লাভ করেন। পরবর্তীতে রুদ্র রায় ও রসিক রায় হয়ে অলকা দেবী উক্ত জমিদারী প্রাপ্ত হন। অলকা দেবী অপুত্রক হওয়ায় রাম রাদ্ররায় চৌধুরীকে দত্তক গ্রহণ করেন। ১৮৮৪ সালে তৎকালীন রংপুর জেলা কালেক্টর পিটার মুর, রাম রুদ্র রায় চৌধুরীকে কাকিনা জমিদার হিসাবে স্বীকৃতি প্রদান করেন।
এসময় বুকানন হ্যামিল্টন কাকিনা ভ্রমন করেন। ১৮৪৯ সালে শম্ভুচরণ রায় চৌধুরী কাকিনার জমিদার হন। শম্ভুসাগর নামে বিরাট দিঘিটি তারই কীর্তি। ১৮৬০ সালের এপ্রিল মাসে ‘‘রঙ্গপুর প্রকাশ’’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকা তার অর্থায়নে প্রকাশিত হয়। এটি বৃহত্তর রংপুর জেলার প্রথম পত্রিকা। এরপর তার দত্তক পুত্র মহিমা রঞ্জন রায় চৌধুরী ১৮৭৪ সালে জমিদারীর দায়িত্ব পান। মহিমা রঞ্জন প্রজা বৎসল এবং সাহিত্য-সংস্কৃতি সেবী জমিদার ছিলেন। তিনি কাকিনায় একটি বিশাল লাইব্রেরী গড়ে তোলেন। ১৯০৮ সালে বগুড়ার ‘‘উডবার্ণ’’ লাইব্রেরীটির তিনিই প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম অর্থদাতা ।
রংপুর জেলার রেলপথ প্রসারে তার অবদান উল্লেখযোগ্য। মহেন্দ্রনগর এবং মহিমাগঞ্জ রেল স্টেশন দুটি তার পুত্র ও নিজ নামে কীর্তিকে স্মরণীয় করে রেখেছে। কাকিনায় তিনি একটি জাদুঘরও স্থাপন করেন। রংপুর সাহিত্য পরিষদের তিনি প্রথম সভাপতি (১৯০৭)। রংপুর শহরে কৈলাশ রঞ্জন উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন কাকিনার জমিদার। তাঁর ফেলে যাওয়া জমিদার বাড়ীর সামনে মহিমা রঞ্জন স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়টি ‘‘হাই ইংলিশ স্কুল’’ প্রতিষ্ঠা পায় তাঁর মৃত্যুর পরপর ১৯০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।
যদিও এই বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু ১৮৫৮ সালে। জমিদারীর বিশাল ব্যাপ্তির কারণে কাকিনা জমিদারী ‘‘কাকিনা রাজবাড়ী’’ নামে পরিচিত ছিল।বর্তমানে লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলাধীন কাকিনা ইউনিয়নের কাকিনা মৌজায় এক কালে গড়ে উঠেছিল বড় বড় ইমারত বিশিষ্ট জমিদার বাড়ী, যা কালের স্রোতে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। কাকিনা জমিদার বাড়ীর অতীত স্মৃতি ধারণ করে এখন নীরবে দাড়িয়ে রয়েছে শুধুমাত্র- “হাওয়াখানা’। কারো কারো মতে এই হাওয়াখানাটি ৪/৫ তলা অবধি ছিলো। কিন্তু বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে এখন আর ৩ তলা অবশিষ্ট আছে। আর এখন যেটি উত্তর বাংলা কলেজ সেটিই জমিদার বাড়ির ছিলো।
ইতিহাস বিশ্লেষণে জানা যায়, মহারাজা মোদ নারায়নের সময় কাকিনা ছিল কোচবিহার রাজ্যাধীন একটি চাকলা। তৎকালে কাকিনার চাকলাদার ছিলেন ইন্দ্র নারায়ণ চক্রবর্তী। ১৬৮৭ খ্রিষ্টাব্দে ঘোড়াঘাটের ফৌজদার এবাদত খাঁ মহারাজা মোদ নারায়ণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে কোচ রাজ্যে অভিযান চালানোর সময় রঘু রামের দু’পুত্র রাঘবেন্দ্র নারায়ণ ও রাম নারায়ণ ফৌজদারের পক্ষ অবলম্বন করেন। মোগলদের এ অভিযানে কোচ বাহিনী পরাজিত হলে ইন্দ্র নারায়ণ চত্রুবর্তীকে কাকিনার চাকলাদার পদ থেকে অপাসারণ করা হয় এবং রাঘবেন্দ্র নারায়ণকে পরগনা বাষট্রি ও রাম নারায়ণকে পরগনা কাকিনার চৌধুরী নিযুক্ত করা হয়।
এভাবেই ইন্দ্র নারায়ণ চক্রবর্তীর চাকলাদারী শেষ হয়ে কাকিনায় রাম নারায়ণের মাধ্যমে নতুন জমিদারীর সূচনা ঘটে। রাম নারায়ণ চৌধুরীর পিতা রঘু রাম সম্পর্কে যতদূর জানা যায়, চাকলাদার ইন্দ্র নারায়ণ চত্রুবর্তীর সময় তিনি কাকিনা চাকলার একজন সাধারণ কর্মচারী ছিলেন। তবে রঘু রামের পিতা রমা নাথ ১৬৩৪ খ্রিষ্টাব্দে কোচবিহার মহারাজা প্রাণ নারায়ণের সময় (১৬৩২-৬৫ খ্রিঃ) রাজ দফ্তরে মজুদদারের কাজে নিয়োজিত ছিলেন।
১৬৮৭ খ্রিষ্টাব্দে রাম নারায়ণ কাকিনা পরগনার চৌধুরী নিযুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে কাকিনায় যে জমিদারীর সূচনা ঘটেছিল, জমিদার মহেন্দ্ররঞ্জনের সময় তাঁর অদক্ষতা, অপরিণামদর্শী ব্যয় ও বিলাসিতার কারণে তা ধ্বংসের মুখে পতিত হয়। মহাজনদের বকেয়া ও সরকারি রাজস্ব পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় ১৯২৫ খ্রিষ্টাব্দে তাঁর জমিদারী নিলাম হয়ে যায় এবং এর পরিচালনার ভার কোর্ট অব ওয়ার্ডস- এর অধীন চলে যায়। যবনিকাপাত হয় একটি গৌরবময় ও সুনামে ভরা ইতিহাসের। এখন শুধু এই কালের স্বাক্ষী হয়ে থাকা ৩ তলা বিশিষ্ট হাওয়াখানাটিই জমিদারী ইতিহাসের জানান দেয় মাথা উঁচু করে।
অতঃপর তিনি প্রায় নিঃস্ব অবস্থায় সপরিবারে কাকিনা ত্যাগ করে কার্সিয়াং (দার্জিলিং)- এ চলে যান। ১৯৩৯ খ্রিষ্টাব্দে সেখানেই তাঁর জীবনাবসান ঘটে। জমিদার মহেন্দ্র রঞ্জন জমিদার এর অবশিষ্ট বংশধর পরে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। সর্বশেষ হামিদা খাতুন রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলার মর্ণেয়া ইউনিয়ন এর কামদেব শেখপাড়া গ্রামে তার স্বামীর বাড়ীতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। হামিদা খাতুন এর বড় ছেলে গঙ্গাচড়া উপজেলার মর্ণেয়া ইউনিয়ন এর বর্তমান চেয়ারম্যান মোছাদ্দেক আলী আজাদ।
সংগ্রহঃ স্থানীয় ব্যক্তিদের মতামত, বিভিন্ন সময়ে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের তথ্য উপাত্ত এবং ইতিহাস ভিত্তিক বই।