সূর্যকে স্পর্শ করে নাসার মহাকাশযানের ইতিহাস

মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার একটি যান আনুষ্ঠানিকভাবেই সূর্যকে স্পর্শ করেছে। জ্যোর্তিবলয় বা করোনা নামের অনাবিষ্কৃত সৌরমণ্ডল অতিক্রম করেছে মহাকাশযানটি। যা সৌরবিজ্ঞানীর জন্য এক ঐতিহাসিক মাইলফলক হয়ে থাকবে। মঙ্গলবার (১৪ ডিসেম্বর) আমেরিকান জিওফিজিক্যাল ইউনিয়নের এক বৈঠকে এমন ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।-খবর সিএনএন ও টিআরটি ওয়ার্ল্ডের পার্কার সোলার প্রোব নামের যানটি গেল এপ্রিলে সত্যিসত্যিই জ্যোতির্বলয় ছুঁয়ে উড়াল দিয়েছে। এটি ছিল মহাকাশযানটির অষ্টমবারের মতো সূর্যের কাছাকাছি যাওয়া। বিজ্ঞানীরা বলছেন, উপাত্ত পেতে বেশ কয়েক মাস সময় লেগেছে এবং তা নিশ্চিত হতে আরও কয়েক মাস ব্যয় করতে হয়েছে। ষাট বছর আগে এই লক্ষ্যে পৌঁছাতে প্রকল্প নিয়েছিল নাসা। বছর তিনেক আগে প্রথম পার্কার সোলার প্রোব উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। নাসার বিজ্ঞান মিশন অধিদপ্তরের সহকারী প্রশাসক থমাস জুরবুচেন বলেন, সূর্যকে স্পর্শ করেছে পার্কার সোলার প্রোব। এটি সৌর বিজ্ঞানের জন্য উল্লেখযোগ্য মুহূর্ত ও কৃতিত্ব। এতে কেবল সূর্যের বিকাশ নিয়ে গভীর অন্তর্দৃষ্টিই মিলবে না, আমাদের সৌরবিজ্ঞানেও এর প্রভাব পড়বে। ২০১৮ সালে প্রথম পার্কার সোলার প্রব উৎক্ষেপ করা হয়েছিল। এরপর সূর্যের কাছাকাছি প্রদক্ষিণ করতে শুরু করে মহাকাশযানটি। জ্যোতির্পদার্থবিদ ইউজেন পার্কারের নামানুসারে এটির নামকরণ করা হয়েছে। সূর্যের সত্যিকারের উপরিভাগের চেয়ে জ্যোতির্বলয় অনেক বেশি উত্তপ্ত। আর এই মহাকাশযানটির মাধ্যমে এবার সেই কারণও অনুসন্ধান করা যাবে।