ওয়ান ব্যাংকের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

চারটি বীমা প্রতিষ্ঠানের প্রায় সাড়ে ১১ কোটি টাকা প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে ওয়ান ব্যাংকের সাত কর্মকর্তাসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এ দুদকের উপ-পরিচালক সৈয়দ নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক। মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের ৫ মার্চ থেকে গত ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে আসামিরা ‘পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা ও জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে’ চারটি বীমা প্রতিষ্ঠানের ভিন্ন ভিন্ন হিসাবসহ অন্যান্য ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে ওয়ান ব্যাংক লিমিটেডের গুলশান শাখার ব্যাংক হিসাবে ‘অবৈধভাবে’ ১১ কোটি ৪০ লাখ ২৩ হাজার ৯২১ টাকা স্থানান্তর করেন। এরপরে এ অর্থ তারা নানা কৌশলে উত্তোলন করে ’আত্মসাৎ ও পাচার’ করেন। এ মামলার অভিযুক্তরা হলেন- ওয়ান ব্যাংক লিমিটেডের ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট শফিউল আলম, সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট বিমলেন্দু চৌধুরী, অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড রিলেশনশিপ ম্যানেজার মুনতাসির রহমান সিদ্দিকী, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ফয়সাল আদিল, জুনিয়র অফিসার মো. শামিম। এছাড়া ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার আবু কালাম মোহাম্মদ সাখাওয়াৎ হোসেন, প্রিন্সিপাল অফিসার মো. এমরান হোসেন ওরফে মোহাম্মদ এমরান হোসেন, ব্যাংকের গ্রাহক আজিজুর রহমান, রাকিবা জাহান, তানভীর হোসেন, পেশোয়ারা বেগম ও সুবু তারা হাওলাদার এ তালিকায় রয়েছেন। এ দিকে চারটি বীমা কোম্পানি হচ্ছে- পাইওনিয়ার ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, প্রভাতি ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, প্রেস ইনস্যুরেন্স লিমিটেড ও সিটি জেনারেল ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।