খুনের দায় এড়াতে বাউলের ছদ্মবেশ,ইউটিউবে লাখ লাখ ভিউ

বাউল বেশে মিউজিক ভিডিওর মডেল। অথচ বাস্তবে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামি। সেলিম ফকির এলাকায় পরিচিত খুনি ও দুর্ধর্ষ হেলাল নামে। তাকে গ্রেফতারের পর র‌্যাব জানায়, তিনটি হত্যা মামলায় জড়িত হেলাল খুনের দায় এড়াতে বিশ বছরের বেশি সময় বিভিন্নস্থানে ফকির ও বাউল ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়িয়েছে। জনপ্রিয় গান ভাঙ্গা তরী ছেড়া পাল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউবে ভিউ কয়েক মিলিয়ন। আর এ গানেরই বাউল মডেল সেলিম ফকির বা বাউল সেলিম ওরফে হেলাল হোসেন। গত ১২ জানুয়ারি খুনের মামলায় কিশোরগঞ্জের ভৈরব রেলওয়ে স্টেশন এলাকা থেকে হেলালকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন জানান, ২০০১ সালে বগুড়ার চাঞ্চল্যকর মাহমুদুল হাসান বিদ্যুৎ হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামি হেলাল, ১৯৯৭ সালে বগুড়ার বিষ্ণু হত্যা মামলা এবং ২০০৬ সালে রবিউল হত্যা মামলার আসামি সে। রয়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাও তার বিরুদ্ধে। খন্দকার আল মঈন আরও জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারে ২১ বছর বয়সে প্রথমে হত্যার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে এবং বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে খুনি ও দুর্ধর্ষ হেলাল নামে পরিচিতি পায়। দীর্ঘসময় আত্মগোপনে থাকার পর ২০১৫ সালে চুরির এক মামলায় গ্রেফতার হলেও জামিনে বেরিয়ে চট্টগ্রাম ও সিলেটের মাজারে ফকির ছদ্মবেশে ও বিভিন্ন রেলস্টেশনে বাউল বেশে জীবনযাপন করতে থাকে সে। পাঁচ বছর আগে নারায়ণগঞ্জের রেলস্টেশনে একটি গানের শুটিং চলাকালে তাকে একজন মিউজিক ভিডিওতে অভিনয়ের প্রস্তাব দিলে ভাঙ্গা তরী গানটিতে মডেল হিসেবে দেখা যায়। তবে হেলাল আরও হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত কিনা তা খুঁজে দেখার কথা জানিয়েছে র‌্যাব।